সুখ কবিতা – কামিনী রায়

সুখ কবিতা – কবি কামিনী রায় (Kamini Roy) – এর একটি জনপ্রিয় বাংলা কবিতা (Bangla Kobita) সুখ।

 

সুখ কবিতা - কামিনী রায়
সুখ কবিতা – কামিনী রায়

 

কামিনী রায়ের জন্ম পূর্ববঙ্গের (বর্তমান বাংলাদেশের) বাকেরগঞ্জের বাসণ্ডা গ্রামে (বর্তমানে যা ঝালকাঠি জেলার অংশ)। তার পিতা চণ্ডীচরণ সেন একজন ব্রাহ্মধর্মাবলম্বী, বিচারক ও ঐতিহাসিক লেখক ছিলেন। ১৮৭০ খ্রীস্টাব্দে চণ্ডীচরণ ব্রাহ্মধর্মে দীক্ষা লাভ করেন। পরের বছর তার স্ত্রী-কন্যাও কলকাতায় তার কাছে ব্রাহ্মধর্মে দীক্ষিত হন। তিনি ব্রাহ্ম সমাজের বিশিষ্ট নেতা ছিলেন। তার ভগিনী যামিনী সেন লেডি ডাক্তার হিসাবে খ্যাতিলাভ করেছিলেন। ১৮৯৪ খ্রীস্টাব্দে কামিনীর সাথে স্টাটুটারি সিভিলিয়ান কেদারনাথ রায়ের বিয়ে হয়।

 

 

সুখ কবিতা – কামিনী রায়

 

নাই কিরে সুখ? নাই কিরে সুখ?—

এ ধরা কি শুধু বিষাদময়? য

তনে জ্বলিয়া কাঁদিয়া মরিতে

কেবলি কি নর জনম লয়?—

কাঁদাইতে শুধু বিশ্বরচয়িতা

সৃজেন কি নরে এমন করে’?

মায়ার ছলনে উঠিতে পড়িতে

মানবজীবন অবনী ‘পরে?

বল্ ছিন্ন বীণে, বল উচ্চৈঃস্বরে,

— না,—না,—না,—মানবের তরে

আছে উচ্চ লক্ষ্য, সুখ উচ্চতর,

না সৃজিলা বিধি কাঁদাতে নরে।

কার্যক্ষেত্র ওই প্রশস্ত পড়িয়া,

সমর-অঙ্গন সংসার এই,

যাও বীরবেশে কর গিয়ে রণ ;

যে জিনিবে সুখ লভিবে সেই।

পরের কারণে স্বার্থে দিয়া বলি

এ জীবন মন সকলি দাও,

তার মত সুখ কোথাও কি আছে?

আপনার কথা ভুলিয়া যাও।

পরের কারণে মরণের সুখ ; “

সুখ” “সুখ” করি কেঁদনা আর,

যতই কাঁদিবে ততই ভাবিবে,

ততই বাড়িবে হৃদয়-ভার।

গেছে যাক ভেঙ্গে সুখের স্বপন

স্বপন অমন ভেঙ্গেই থাকে,

গেছে যাক্ নিবে আলেয়ার আলো

গৃহে এস আর ঘুর’না পাকে।

যাতনা যাতনা কিসেরি যাতনা?

বিষাদ এতই কিসের তরে?

যদিই বা থাকে, যখন তখন

কি কাজ জানায়ে জগৎ ভ’রে?

লুকান বিষাদ আঁধার আমায়

মৃদুভাতি স্নিগ্ধ তারার মত,

সারাটি রজনী নীরবে নীরবে

ঢালে সুমধুর আলোক কত!

লুকান বিষাদ মানব-হৃদয়ে

গম্ভীর নৈশীথ শান্তির প্রায়,

দুরাশার ভেরী, নৈরাশ চীত্কার,

আকাঙ্ক্ষার রব ভাঙ্গে না তায়।

বিষাদ—বিষাদ—বিষাদ বলিয়ে

কেনই কাঁদিবে জীবন ভরে’?

মানবের মন এত কি অসার?

এতই সহজে নুইয়া পড়ে?

সকলের মুখ হাসি-ভরা দেখে

পারনা মুছিতে নয়ন-ধার?

পরহিত-ব্রতে পারনা রাখিতে

চাপিয়া আপন বিষাদ-ভার?

আপনারে লয়ে বিব্রত রহিতে

আসে নাই কেহ অবনী ‘পরে,

সকলের তরে সকলে আমরা,

প্রত্যেকে আমরা পরের তরে।

কামিনী রায় 1 সুখ কবিতা - কামিনী রায়

 

সুখ কবিতা এর মূলভাবঃ

সুখ’ কবিতায় কবি কামিনী রায় বলেছেন, যারা স্বার্থপর, আত্মকেন্দ্রিক, তারা প্রকৃত সুখী নয়। প্রকৃত সুখী তারা, যারা পরার্থপরায়ণ, অন্যের সুখ-দুঃখের অংশীদার হয়, পরের কল্যাণে নিজেকে নিয়োজিত করে। কবি প্রকৃত সুখী হতে সেবা, ভালোবাসা এবং কল্যাণের মাধ্যমে অন্যের দুঃখ-ব্যথা দূর করার জন্য প্রয়োজনে ত্যাগ স্বীকার করতে বলেছেন। মানুষ শুধু নিজের সুখের জন্য পৃথিবীতে আসেনি। যারা মহৎ, তারা সব সময় অন্যের মঙ্গলের জন্য কাজ করে যায়। ফুল যেমন অন্যকে মুগ্ধ করে, তেমনি আমরাও পরের কল্যাণের জন্য আমাদের জীবনকে উৎসর্গ করব।

 

কামিনী রায় সুখ কবিতা - কামিনী রায়

 

 

সুখ কবিতা আবৃত্তিঃ

 

আরও দেখুনঃ

মন্তব্য করুন