সাইবার ক্রাইম রচনা । Essay on Cyber crime । প্রতিবেদন রচনা

সাইবার ক্রাইম রচনা: সাইবার ক্রাইম ইন্টারনেট ব্যবহারের সাথে সম্পর্কিত একটি অপরাধ। কিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্যের সাথে এটি প্রকাশ্যে বা অর্থ উপার্জনের উপায়ে ফাঁস করা হয়।

সাইবার ক্রাইম রচনা

সাইবার ক্রাইম রচনা । Essay on Cyber crime
সাইবার ক্রাইম রচনা । Essay on Cyber crime

ভূমিকা

ইন্টারনেট ও কম্পিউটারের অবৈধ ব্যবহার হিসেবে সাইবার ক্রাইম উল্লেখ করা যেতে পারে। কম্পিউটার অপরাধের মাধ্যম বা অপরাধের অস্ত্র হিসেবে ব্যবহৃত হয়। এই অপরাধগুলি আমাদের দৈনন্দিন জীবনের একটি সাধারণ অংশ হয়ে উঠেছে। প্রতিদিনই কেউ না কেউ সাইবার অপরাধের শিকার হচ্ছেন। ইন্টারনেট একই সময়ে অনেক লোক বিভিন্ন উদ্দেশ্যে ব্যবহার করে, এই হ্যাকাররা এই সুযোগগুলিতে তাদের পথ তৈরি করে।

বিভিন্ন ধরনের সাইবার অপরাধ

ফিশিং –

এর মধ্যে স্প্যাম ইমেল পাঠিয়ে বা একটি জাল ওয়েবসাইটের মাধ্যমে ব্যবহারকারীর ব্যক্তিগত তথ্য পাওয়া অন্তর্ভুক্ত।

পরিচয় চুরি –

এর মধ্যে ক্রেডিট বা ডেবিট কার্ড বা ব্যাঙ্কের বিবরণ সম্পর্কে তথ্য পাওয়া জড়িত, তথ্য চুরি হওয়ার পরে, আরও অবাঞ্ছিত অর্থ সহজেই প্রত্যাহার করা যেতে পারে।

ম্যালওয়্যার আক্রমণ –

ম্যালওয়্যার হল একটি অবৈধ সফ্টওয়্যার যা কম্পিউটার বা সিস্টেমের ক্ষতি করার জন্য ডিজাইন করা হয়েছে৷ এটি সাধারণ তথ্য অ্যাক্সেস করার জন্য বা সেই সিস্টেম ব্যবহার করে কিছু অপরাধ করার জন্য করা হয়।

এটিএম চিট –

এই অপরাধে এটিএম মেশিন সম্পূর্ণ হ্যাক করা হয়। অপরাধীরা কার্ডে প্রিন্ট করা ডেটা এবং পিন উভয়ই অ্যাক্সেস করার একটি উপায় তৈরি করেছে, যাতে তারা কার্ডের নকল করতে সক্ষম হয় এবং অর্থ উত্তোলনের জন্য একই ব্যবহার করতে পারে।

সাইবার হয়রানি –

অপরাধী অনলাইন মাধ্যমে ব্যক্তিকে ধাওয়া বা হয়রানি করতেও বেশ সক্রিয়। তারা ম্যালওয়্যার পাঠিয়ে সিস্টেমের ক্ষতি করে এবং সঠিক তথ্য পেতে সক্ষম।

পর্নোগ্রাফি –

পর্নোগ্রাফিক ওয়েবসাইটের মাধ্যমে যৌন কার্যকলাপ সম্বলিত ভিডিও উপস্থাপনের কাজ।

জালিয়াতি –

এই ধরণের অপরাধে, আপনি একটি ইমেল পান যা একটি খাঁটি উত্স থেকে পাঠানো হয়েছে বলে মনে হয়, তবে এটি নয়, এটি বিভ্রান্তিকর।

পাইরেসি –

এটি গোপনীয় তথ্য অ্যাক্সেস করার একটি অননুমোদিত পদ্ধতি। অনেক সময় সরকারি ওয়েবসাইট হ্যাক করা হয় এবং ফাইলের গুরুত্বপূর্ণ ডেটার পাইরেটেড কপি তৈরি করা হয়, যা অনেক সমস্যা তৈরি করে বা গুরুত্বপূর্ণ ডেটা নষ্ট হয়ে যায়।

সাইবার ক্রাইম রচনা । Essay on Cyber crime
সাইবার ক্রাইম রচনা । Essay on Cyber crime

ন্যাশনাল ক্রাইম ইনভেস্টিগেশন এবং ক্রাইম ফরেনসিক নিয়ে প্রথম জাতীয় সম্মেলন

আমাদের দেশ ভারত প্রথমবারের মতো 4 ও 5 সেপ্টেম্বর, 2019 তারিখে নয়াদিল্লিতে অবস্থিত CBI (সেন্ট্রাল ব্যুরো অফ ইনভেস্টিগেশন) এর সদর দফতরে অপরাধ তদন্ত সংক্রান্ত একটি জাতীয় সম্মেলন আয়োজন করে।
সম্মেলনের মূল উদ্দেশ্য ছিল তদন্তকারী, ফরেনসিক দল এবং অন্যান্য কর্মকর্তাদের সাইবার সংক্রান্ত অপরাধ মোকাবেলার বিভিন্ন পদ্ধতি ও ব্যবস্থা নিয়ে আলোচনা করার জন্য একটি প্ল্যাটফর্ম তৈরি করা।

সাইবার অপরাধ সচেতনতা

  • সাইবার অপরাধের ভয়ঙ্কর কর্মকাণ্ড থেকে নিরাপদ থাকতে বিভিন্ন নিরাপত্তা ব্যবস্থা অনুসরণ করতে হবে।
  • শক্তিশালী পাসওয়ার্ড ব্যবহার করতে হবে। পাসওয়ার্ড জটিল হতে হবে, যা অনুমান করা যাবে না।
  • সিস্টেমকে ম্যালওয়্যার থেকে মুক্ত রাখতে অ্যান্টিভাইরাস প্রোগ্রাম(গুলি) ব্যবহার করা উচিত।
  • নিয়মিত সিস্টেম আপডেট করুন।
  • সতর্ক থাকুন এবং আপনার পরিচয় এবং গুরুত্বপূর্ণ তথ্য চুরি এড়াতে নিজেকে স্মার্ট এবং সক্রিয় করুন।
  • আপনার সন্তানদের ইন্টারনেট সম্পর্কে সচেতন করুন, যাতে তারা এই ধরনের পরিস্থিতির মধ্য দিয়ে যাচ্ছেন, যদি তারা কোনো দুর্ব্যবহার বা হয়রানির বিষয়ে অবিলম্বে সচেতন হতে পারে।
  • সোশ্যাল মিডিয়াতে গোপনীয়তা সেটিংস বজায় রাখুন।

সাইবার নিরাপত্তা

সাইবার নিরাপত্তা আমাদের সিস্টেম, নেটওয়ার্ক, ডিভাইস এবং প্রোগ্রামগুলিকে দূষিত সফ্টওয়্যার দ্বারা আক্রমণ থেকে রক্ষা করে। এইভাবে অপরাধীদের দ্বারা তথ্যের অবৈধ অ্যাক্সেস রোধ করা যেতে পারে।

গুরুত্ব –

দেশের যেকোন গুরুত্বপূর্ণ ইস্যু সম্পর্কে তথ্য বা ব্যক্তিগত ব্যবহারের জন্য তৈরি যেকোন তথ্য, শেয়ার করলে অনেক সমস্যার সৃষ্টি হবে। তাই একাধিক স্তরে নিরাপত্তা পরীক্ষা করা হলে তথ্য ও গুরুত্বপূর্ণ তথ্য ফাঁস হওয়া রোধ করা যাবে।

সাইবার ক্রাইম রচনা । Essay on Cyber crime
সাইবার ক্রাইম রচনা । Essay on Cyber crime

সাইবার নিরাপত্তার ধরন

  • নেটওয়ার্ক নিরাপত্তা –

নেটওয়ার্ককে ম্যালওয়্যার দ্বারা আক্রমণ করা থেকে রক্ষা করে এবং তাই সর্বদা একটি নিরাপদ নেটওয়ার্ক ব্যবহার করুন৷

  • ক্লাউড সুরক্ষা –

ক্লাউড সংস্থানগুলি ডেটা সুরক্ষিত করার উপায় সরবরাহ করে।

  • তথ্য সুরক্ষা –

অননুমোদিত বা অবৈধ অ্যাক্সেস থেকে ডেটা রক্ষা করতে সহায়তা করে।

  • শেষ-ব্যবহারকারীর নিরাপত্তা –

সিস্টেমে কোনো বাহ্যিক ডিভাইস ঢোকানোর সময়, কোনো মেল বা লিঙ্ক খোলার সময় ব্যবহারকারীকে সতর্ক থাকতে হবে।

  • অ্যাপ্লিকেশন নিরাপত্তা –

সিস্টেম এবং সফ্টওয়্যারকে যেকোনো হুমকি থেকে মুক্ত রাখতে সাহায্য করে।

সাইবার ক্রাইম রচনা । Essay on Cyber crime
সাইবার ক্রাইম রচনা । Essay on Cyber crime

উপসংহার

সাইবার ক্রাইম দিন দিন পা ছড়িয়ে পড়ছে। এর খারাপ প্রভাবের শিকার হওয়া থেকে নিরাপদ থাকার সর্বোত্তম উপায় হল নিরাপত্তা ব্যবস্থা অনুসরণ করা। এমন অনেক উপায় আছে যার মাধ্যমে আমরা আমাদের গোপন তথ্য ফাঁস হওয়া থেকে রক্ষা করতে পারি। যাইহোক, আমাদের সর্বদা সচেতনতার উপর ফোকাস করা উচিত, কারণ ‘প্রতিকারের চেয়ে প্রতিরোধই ভালো’, বিশেষ করে যখন চিকিত্সা পাওয়া যায় না।

আরও পড়ুনঃ

 

মন্তব্য করুন