বিশ্বায়ন রচনা । Essay on Globalisation । প্রতিবেদন রচনা

বিশ্বায়ন রচনা । Essay on Globalisation । প্রতিবেদন রচনা

বিশ্বায়ন রচনা । Essay on Globalisation
বিশ্বায়ন রচনা । Essay on Globalisation

বিশ্বায়ন রচনা

ভূমিকা :

বিশ্ব আজ একবিংশ শতাব্দীতে তথ্যবিপ্লবের যুগে প্রবেশ করছে । মানুষের জীবনযাত্রার নানা ক্ষেত্রে জ্ঞান – বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তির ক্রম সম্প্রসারণ এক প্রবল অভিঘাত সৃষ্টি করেছে । মানুষ পৃথিবীর বিভিন্ন প্রান্তে বসবাস করলেও প্রত্যেকে প্রত্যেকের সাথে পরিচিত হওয়ার সুযোগ পাচ্ছে উন্নত যোগাযোগ নেটওয়ার্কের ফলে ।

সেই সাথে মানুষ ক্রমাগত তার জীবনযাপনের পরিবেশ থেকে ভৌগোলিক সীমাবদ্ধতার বাধা কাটিয়ে ওঠে জ্ঞান – বিজ্ঞানের , সুদূরপ্রসারী ও সম্প্রসারণশীল বিষয় , আবিষ্কার , ধারণা , সুবিধা ইত্যাদির সাথে নিজেকে যুক্ত করতে চাইছে । মানুষের অবস্থানের ভৌগোলিক সীমা আর মানসিকতার বন্দিদশা থেকে উত্তরণের এই প্রচেষ্টা এবং বিশ্বব্যবস্থার বহুমাত্রিকতার সাথে নিজেকে যুক্ত করার জন্য আধুনিককালে যেসব ব্যবস্থা ক্রমাগত তাত্ত্বিক রূপলাভ করছে তাই বিশ্বায়ন প্রক্রিয়া ।

বিশ্বায়ন কী :

সাধারণ অর্থে ‘ বিশ্বায়ন ‘ সমগ্র বিশ্বকে আধুনিকতা ও অগ্রগতির এক বলয়ে সমন্বিত করার একটি তত্ত্ব বা ধারণা । যার সূত্রপাত ঘটেছে তথ্যপ্রযুক্তির অভাবিত বিকাশের মধ্যদিয়ে । তাই বিশ্বায়ন বলতে বিশ্বজুড়ে দ্রুত তথ্য আদান প্রদানের সাম্প্রতিক অগ্রগতিকেই বুঝানো হয়ে থাকে । অর্থনৈতিক দিক দিয়ে বিশ্বায়ন হচ্ছে সমগ্র বিশ্বকে একটি মাত্র বিশাল রাজ্যকে একত্রীকরণ ।

বিশ্বায়ন আজ একটি বহুমাত্রিক প্রত্যয় আর বহুমাত্রিক প্রতায় হিসেবে বিশ্বায়ন সম্পর্কিত বিভিন্ন নেতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গিরও পরিচয় পাওয়া যায় । যেমন বিশ্বজুড়ে শক্তি ও ক্ষমতার ভারসাম্যহীনতার পটভূমি হলো লাগামহীন বিশ্বায়ন , যার অবধারিত পরিণতি হলো অর্থনৈতিক মাৎস্যন্যায় । মাৎস্যন্যায় শব্দের অর্থ হচ্ছে বড় মাছ কর্তৃক ছোট মাছকে খেয়ে ফেলা ।

অর্থাৎ ধনী রাষ্ট্রগুলো আরো ধনী এবং গরিব রাষ্ট্রগুলো আরো গরিব হওয়ার এই প্রক্রিয়াকে বিশ্বায়ন হিসেবে চিহ্নিত করা হয় । বিশ্বায়ন এই যোগাযোগেরই অপর নাম । ড . আলী আসগর তাই বিশ্বায়নের সংজ্ঞা দিতে গিয়ে বলেন উন্নত দেশ থেকে আমদানিকৃত সামগ্রী ধার করা জ্ঞান ও তথ্য বিশ্বায়নকে বুঝায় না বরং সৃজনশীল , উদ্ভাবন ও আবিষ্কার জ্ঞানের জগৎকে যে দ্রুত বদলে দিচ্ছে এবং সৃষ্টি করছে এক দ্রুত পরিবর্তনশীল অবিচ্ছিন্ন জগতের , তার সমগ্রতাই এক বহুমাত্রিকতা এনেছে । বিশ্বায়ন তাই সংঘটিত হয়েছে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির বিচিত্র ফসলকে দীর্ঘদিন ধরে শোষণ করে নিয়ে এবং সে সঙ্গে জ্ঞানের সমন্বয় ঘটিয়ে ।

বিশ্বায়ন রচনা । Essay on Globalisation
বিশ্বায়ন রচনা । Essay on Globalisation

বিশ্বায়ন ও অর্থনীতি :

মানুষের জীবনের মূল ভিত্তি অর্থনীতি । অর্থনীতির সাথে রাজনীতি , সংস্কৃতি সবকিছু জড়িত । তাই বিশ্বায়ন বিশ্ব মানবগোষ্ঠীর মধ্যে একটি আন্তঃপারিবারিক জ্ঞানময় যোগাযোগ হলেও তা একটি অর্থনৈতিক প্রত্যয় । অর্থনীতিই বিশ্বায়নের প্রেরণা । ড . সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী বলেন- “ বিশ্বায়ন নতুন কোনো বিষয় নয় , এটা পুরোনো বাস্তবতারই নতুন নাম এবং বাস্তবতাটি হচ্ছে পুঁজিবাদ । পুঁজিবাদই নতুনরূপে বিশ্বায়নের নাম ধরে এসেছে । ” বিশ্ব অর্থনীতিতে পুঁজিবাদ একটি আগ্রাসী এবং সম্প্রসারণশীল প্রক্রিয়া ।

বিশ্বায়নের ইতিবাচক দিক :

ঘরে বসেই কম্পিউটার , ইন্টারনেটের মাধ্যমে কয়েক মুহূর্তেই সমগ্র বিশ্বের খোঁজখবর জেনে যাওয়া আর কল্পনার বিষয় নয় । বিশ্বায়নের যেসব ইতিবাচক দিক রয়েছে তার মধ্যে নিম্নলিখিত দিকগুলো উল্লেখযোগ্য-

১. বিশ্বায়নের ফলে বিশ্বের দেশগুলোর মধ্যে পারস্পরিক সম্পর্ক জোরদারের মাধ্যমে আন্তর্জাতিক সম্পর্কের উন্নয়ন হচ্ছে ।
২ . বিশ্বায়নের ফলে যে বৃহৎ বাজার ব্যবহার ব্যাপ্তি হয়েছে তাতে বৃহদায়তন উৎপাদন ও বিপণন সহজসাধ্য হয়েছে ।
৩. জ্ঞানদক্ষতা ও অভিজ্ঞতার মধ্যে পরস্পর গ্রহণ বর্জনের ক্ষেত্র প্রসারিত হয়েছে ।
8 . অবাধ বাণিজ্যের সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে ।
৫. আন্তর্জাতিক সংঘাত হ্রাস করে শান্তি বজায় রাখা সম্ভব হচ্ছে ।

বিশ্বায়ন ও মুক্তবাজার অর্থনীতি:

মুক্তবাজার অর্থনীতি বিশ্বায়নের একটি সুপক্ব ফল । এক দেশের পণ্য , উৎপাদিত ফুল – ফসল থেকে শুরু করে সবকিছুই শুধু সেদেশের মানুষের ভোগ্য হিসেবে বিবেচিত হবে না , তার উপর অন্য দেশেরও অধিকার আছে । এ অধিকার কার্যকর হবে পণ্যের আন্তবিশ্ব – অবাধ – প্রচলনের মাধ্যমে । বিশ্বায়ন , বিশ্বের বিভিন্ন দেশের উৎপাদন ও ভোগের ব্যবস্থার মধ্যে রাষ্ট্রীয় বাণিজ্য ব্যবস্থার বিধি – বিধানের অনেক প্রতিবন্ধকতাই অপ্রয়োজনীয় করে তোলে ।

মুক্ত বাণিজ্য ব্যবস্থা সারাবিশ্বের পণ্য প্রচলন প্রক্রিয়াকে অবাধ ও গতিশীল করে বিশ্বকে একটি গ্রামে পরিণত করে তোলে । এ প্রসঙ্গে ফাদার আর ডব্লিউ টিম বলেন- ” Globalisation refers to all the processes by which all the people of the world are part of a single global society . ” পণ্যের অবাধ বাণিজ্যের সাথে পুঁজিরও গতিশীলতা সৃষ্টি হয় । এরই ফলে আজ এক দেশে বসে অন্য দেশের ফল , খাদ্যদ্রব্য , বিলাস সামগ্রী , বিনোদন উপকরণ , সাংস্কৃতিক – উপচার সবকিছুই ভোগ ও উপভোগ করা সম্ভব হচ্ছে ।

পণ্য আমদানির রাষ্ট্রীয় বাধা সম্পূর্ণ নিরসন ও ব্যাপক হারে শুল্ক হ্রাস , দেশের আমদানি – রপতানির রাষ্ট্রীয় নিয়ন্ত্রণ অবমুক্ত করে যাবতীয় পণ্যের অবাধ ও সহজ আন্তঃদেশীয় চলাচলের মাধ্যমে পৃথিবীর সমস্ত দেশের পণ্যের গুণগত মানের উৎকর্ষতা সাধন মুক্তবাজার অর্থনীতির অভীষ্ট লক্ষ্য । এতে প্রতিযোগিতা সৃষ্টি হওয়ার কারণে উৎপাদন সামগ্রীর গুণগত মানের উৎকর্ষতা অর্জিত হবার এবং মূল্য স্থিতিশীল ও নেমে আসার নিশ্চয়তা থাকবে বলে মুক্তবাজার অর্থনীতির প্রবক্তাদের অভিমত ।

পণ্যের অবাধ আন্তর্জাতিক প্রবাহের কারণে অর্থনীতির চাকা গতিশীল , সরকারের রাজস্ব আয় বৃদ্ধি , মাথাপিছু আয়সহ সামগ্রিক প্রবৃদ্ধি অর্জিত হলে প্রতিটি দেশের অবকাঠামো উন্নতি এবং ফলশ্রুতিতে দেশের কলকারখানার সংখ্যার এবং উৎপাদনের প্রবৃদ্ধি ঘটবে । শুধুমাত্র ধার্য শুষ্ক প্রদান করে ব্যবসায়ীদের পণ্য আমদানিতে কোনো বাধা না থাকায় এবং বাজারের পণ্যমূল্য একশ্রেণির হাতে জিম্মি হয়ে পড়ার সুযোগ ও সম্ভাবনা না থাকায় বাজার আপনাআপনি নিয়ন্ত্রিত থাকে ।

বিশ্বায়ন রচনা । Essay on Globalisation
বিশ্বায়ন রচনা । Essay on Globalisation

বিশ্বায়নের নেতিবাচক দিক :

বিশ্বায়নের নেতিবাচক প্রভাব সাধারণত উন্নয়নশীল দেশগুলোতে বেশি পরিলক্ষিত হচ্ছে । মুক্তবাজার অর্থনীতির আওতায় বিশ্বায়ন উন্নত দেশের জন্য বিশ্বসম্পদের দ্বার খুলে দিলেও দরিদ্র ও পশ্চাৎপদ দেশের জন্য তা বড় অভিশাপ বয়ে এনেছে । যেমন-

১. বিশ্বায়নের ফলে দরিদ্র দেশের মেধা অবাধে পাচার হচ্ছে ধনী দেশগুলোতে । এতে গরিব দেশ আরও গরিব এবং ধনী দেশ হচ্ছে।
২. বিশ্বায়নের ফলে পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের মধ্যে অসম প্রতিযোগিতার সৃষ্টি হচ্ছে । ফলে দরিদ্র দেশের বহু শিল্প প্রতিষ্ঠান প্রতিযোগিতায় টিকতে না পেরে বন্ধ হয়ে যাচ্ছে । ফলে বেকার হচ্ছে লক্ষ লক্ষ শ্রমিক ।
৩. বিশ্বায়নের ফলে রাষ্ট্রীয় গোপনীয়তা রক্ষা করাও দুঃসাধ্য হয়ে পড়েছে ।
৪. বিশ্বায়নের ফলে বিভিন্ন দেশের সাংস্কৃতিক বিপর্যয় ঘটেছে ।

বিশ্বায়নের প্রভাব ও বাংলাদেশ :

উন্নয়নশীল , প্রাকৃতিক সম্পদ ও শ্রম সম্পদে পরিপূর্ণ বাংলাদেশেও বিশ্বায়নের প্রভাব পড়ছে । বিশ্বায়নের ফলে বিশ্বের সম্পদ ও প্রযুক্তির যে বিস্ময়কর বিকাশ ঘটতে শুরু করেছে তার ধাক্কা বাংলাদেশেও এসে লাগছে । মুক্তবাজার অর্থনীতির সুফল হিসেবে উন্নত দেশগুলোর তথ্যপ্রযুক্তির ব্যবস্থা , কম দামে পণ্যভোগ এবং বিদেশি পুঁজি বিনিয়োগের মাধ্যমে বাংলাদেশের সমাজ ও অর্থনীতিতে নতুন মাত্রা যুক্ত হচ্ছে; গ্যাস সম্পদ , অর্থনৈতিক ও সামাজিক অবকাঠামো ও অন্যান্য শিল্প ইত্যাদি ক্ষেত্রে বিদেশি পুঁজি বিনিয়োগের মাধ্যমে আধুনিক বিশ্বব্যবস্থার সাথে বাংলাদেশ নিজেকে যুক্ত করে নিচ্ছে ।

কৃষিক্ষেত্রেও হাইব্রিড বীজসহ কৃষিভিত্তিক নানা ব্যবসা – বাণিজ্যের দুয়ার বিদেশিদের জন্য খুলে যাচ্ছে । তবে বাংলাদেশের মতো উন্নয়নশীল দেশকে ক্ষতিকর ও ধ্বংসাত্মক প্রভাব এড়িয়ে বিশ্বায়নের সুফল পেতে হলে রাষ্ট্রকে কতগুলো নীতি – নির্ধারণ করতে হবে । এসবের মধ্যে রয়েছে উন্নত তথ্যপ্রযুক্তিকে কাজে লাগাবার জন্য ভৌত কাঠামো উন্নয়ন , শিক্ষার সম্প্রসারণ ঘটিয়ে সামাজিক খাতে দক্ষ জনশক্তি তৈরি করা , দারিদ্র্য নিরসন , সুশাসন নিশ্চিতকরণ , পরিবেশ সচেতনতা , মানুষের কর্মপরিধি বৃদ্ধি , রাষ্ট্রের মানবিক উন্নয়ন ইত্যাদি ।

বিশ্বায়নের ক্ষেত্রে বাংলাদেশসহ উন্নয়নশীল দেশসমূহের করণীয় :

বাংলাদেশের মতো উন্নয়নশীল দেশের জন্য নিম্নলিখিত নীতি – নির্ধারণী পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে-

বিশ্বায়ন রচনা । Essay on Globalisation
বিশ্বায়ন রচনা । Essay on Globalisation

১ . রাষ্ট্রের ভৌত কাঠামোর উন্নয়ন ।
২ . শিক্ষা , স্বাস্থ্য , নিরাপত্তাসহ সামাজিক ও অর্থনৈতিক ক্ষেত্রসমূহে বিনিয়োগ বৃদ্ধি ।
৩ . প্রযুক্তির উৎকর্ষ সাধন করে তাতে তথ্যপ্রযুক্তিসহ গবেষণাধর্মী বিষয়গুলোতে আরো গবেষণা চালানো ।
৪ . সুশাসন প্রতিষ্ঠার জন্য সর্বাত্মক আত্মনিয়োগ করা ।
৫. অস্থিতিশীল সামাজিক ও রাজনৈতিক পরিবেশকে চিরতরে নির্মূল করে সংযত ও সহনশীল তথা স্থিতিশীল পরিবেশ তৈরি করা।

উপসংহার :

তথ্যপ্রযুক্তির অকল্পনীয় বিকাশের ফল হিসেবে বিশ্ব আজ যে যোগাযোগের স্তরে পৌঁছেছে বর্তমানে অস্তিত্ব রক্ষা করতে চাইলে কোনো দেশের পক্ষেই এ যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হওয়া সম্ভব নয় । আত্মরক্ষা এবং আত্মবিকাশ উভয় কারণেই বিশ্বকে আজ এগিয়ে যেতে হবে বিশ্বায়নের দিকে । তবে বিশ্বায়নের সর্বগ্রাসী প্রভাব থেকে নিজেদের রক্ষার কথাও দরিদ্র বা স্বল্পোন্নত দেশগুলোকে ভাবতে হবে ।

বিশ্বায়ন যেন ধনী দেশগুলোর প্রভুত্ব ও উপনিবেশ বিস্তার না করে সত্যিকার অর্থেই সারাবিশ্বকে একটি উদার , সর্বজনীন উন্নত আধুনিক জীবনের আওতায় নিয়ে আসা যায় সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে । বিশ্বায়নকে আধিপত্যবাদ থেকে মুক্ত করে আন্তর্জাতিকতাবাদের ধারণার উপর প্রতিষ্ঠিত হতে হবে । বিশ্বায়ন আমাদের সামনে উন্মোচিত করেছে নতুন এক প্রত্যাশার জগৎ , এক সম্ভাবনার জগৎ। যার অধিকারী আমরা হতে পারি বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিক্ষেত্রে অংশগ্রহণের ভেতর দিয়ে সৃজনশীলতা , প্রেরণা ও কঠোর শ্রমের মধ্যদিয়ে ।

আরও পড়ুনঃ

মন্তব্য করুন