ন্যাশ ডেসটারের অনুরোধ -হাউস অব ডেথ ( আগাথা ক্রিস্টির অন্যান্য উপন্যাস ) [ অনুবাদ সাহিত্য ]

ন্যাশ ডেসটারের অনুরোধ

ন্যাশ ডেসটারের অনুরোধ -হাউস অব ডেথ ( আগাথা ক্রিস্টির অন্যান্য উপন্যাস ) [ অনুবাদ সাহিত্য ]

ন্যাশ ডেসটারের অনুরোধ -হাউস অব ডেথ ( আগাথা ক্রিস্টির অন্যান্য উপন্যাস ) [ অনুবাদ সাহিত্য ]
আগাথা ক্রিস্টি
গত কয়েকদিন ধরে ন্যাশ ডেসটারের অনুরোধে তার পাশের ঘরে শুচ্ছে।

হয়তো ডেসটার নিজের নিরাপত্তার জন্যে কিংবা হেলেনের শয়তানীর কিছু আঁচ পেয়ে ন্যাশকে তার পাশের ঘরে শুতে বলেছে।

একদিন ন্যাশকে ডেসটার ডেকে পাঠায়। ডেসটারের ঘরে যেতে ন্যাশকে সে বসতে বলে। আর বলে, হেলেনকে আমি এখানে আসতে বলেছি?

ন্যাশ চলে যেতে চায় কিন্তু ডেসটার তাকে জানায়, তুমি আমাদের কথাবার্তার সাক্ষী থাকবে।

ন্যাশ ইতস্ততঃ করে, কারণ হেলেনের স্বভাবচরিত্র তার জানা আছে।

ইতিমধ্যে হেলেন ঘরে প্রবেশ করে। সে ন্যাশকে দেখে ডেসটারের কাছে তার এই ঘরে থাকার প্রতিবাদ জানায়, কিন্তু ডেসটার তাকে স্পষ্ট জানায়, ন্যাশ তাদের কথাবার্তার সাক্ষী থাকবে এবং এই ঘরে সে বসে থাকবে।

–সাক্ষী? হেলেন অসহিষ্ণুভাবে বলে কিসের সাক্ষী?

–তুমি কি কিছু আঁচ করতে পারছো না?

–তা কথাটা কি? স্পষ্ট করে বলবে?

–তোমার জন্যেই আমি মদ ধরেছি?

–আমার জন্য?

–হ্যাঁ। রাতদিন শুধু ক্লাবে ঘুরে বেরিয়েছে, বয়ফ্রেণ্ডেরও তো অভাব নেই।

–কি দিয়েছো তুমি আমায়? বয়ফ্রেণ্ডের সঙ্গে সময় কাটাতে আমি বাধ্য হয়েছি। তোমার কাছে আমার জীবন যৌবন উপেক্ষিত, এ ব্যাপারে তুমি কি দিতে পেরেছো?

–সে মন নিয়ে তুমি এসেছো কোনদিন? তুমি আমাকে বিয়ে করেছো আমার টাকার জন্যে। আর আমি তোমাকে ভুলবার জন্যে মদ ধরেছি। ফলে আমার কাজকর্মে ভাটা পড়েছে, চাকরী যেতে বসেছে। আর কেউ আমায় চাকরী দেবে। মদে ডুবে থাকার জন্যে বাজারে আমার বদনাম হয়ে গেছে।

ডেসটার একটু থেমে বলে, পাওনাদাররা আমাকে হেঁকে ধরবে। গাড়ি-বাড়ি বেচে কদিন চলবে?

–সে তো নিশ্চয়ই, হেলেন বলে।

-ডেসটার হেলেনের দিকে সরাসরি তাকিয়ে বলে, তুমি আমার জীবনবীমার সাড়ে সাত লাখ ডলারের আশায় বসে আছো না? টাকাটা যাতে তুমি না পাও, তার ব্যবস্থা আমি করবো।

-তার আবার কী ব্যবস্থা করবে?

দুর্ঘটনা ঘটলেই টাকাটা তুমি পেয়ে যাবে, তা হবে না। আগেও তুমি দুর্ঘটনা ঘটিয়ে আমায় মেরে ফেলার চেষ্টা করেছে, পারোনি।

–আমি? তোমাকে?

–হা হা, তুমি।

–মিথ্যে।

-মিথ্যে, ঠিক আছে মিথ্যে। জীবনবীমা পলিসির একটা শর্ত ছিল, একবছর প্রিমিয়াম দেবার পর সে আত্মহত্যা করলে, ওরা পুরো টাকাটা দিতে বাধ্য থাকবে। শর্তটা আমি সানফ্রান্সিসকো গিয়ে বাতিল করে এসেছি। আত্মহত্যা করলে বীমা কোম্পানী তোমাকে একপয়সাও দেবে না।

–তার মানে?

–তোমার আসল রূপ চিনতে আমার বাকী রইল না। আর বেকার জীবন কাটাতে আমি পারবো না। হাতে একটা পয়সা নেই, বেঁচে থেকে কি লাভ? এর চেয়ে আমার মরে যাওয়া হাজার গুণ শ্রেয়। তবে আত্মহত্যাকে দুর্ঘটনা বলে সাজাতে গেলে ফেঁসে যাবে। বীমা কোম্পানীর ম্যাডক্স একজন ঝানু গোয়েন্দা। তার চোখকে ফাঁকি দেওয়া সহজ নয়।

হেলেন ডেসটারের এসব কথা সহ্য করতে না পেরে রেগেমেগে ঘর ছেড়ে চলে গেল। ডেসটার তখন ন্যাশকে বলে, তোমার ব্যবস্থা আমি করে যাবো।

-স্যার, একজনের ওপর রাগ করে জীবনটা শেষ করে দেবেন না, আমার এটা অনুরোধ। ন্যাশ বলে।

–ভেবে দেখব, ডেসটার বলে। এরপর ন্যাশ নিজের ঘরে চলে আসে।

ডেসটার রিসিভার তুলে ডায়াল করে। সে তার অ্যাটর্নিকে সব কথা জানাতে চায়।

মিঃ রোজারিওর গলা শোনা গেল, হ্যালো, গুড ইভিনিং মিঃ ডেসটার।

–আমি আপনাকে একটা জরুরী কথা জানাতে চাই, আমি আত্মহত্যা করতে যাচ্ছি।

–সে কি?

এছাড়া আমার আর উপায় নেই।

–আমি আপনার ব্যক্তিগত ব্যাপারে নাক গলাতে চাই না, তবে সিদ্ধান্তটা নেবার আগে একটু ভেবে দেখবেন।

-আমি অনেক ভেবে দেখেছি। হ্যাঁ, আমি আত্মহত্যা করলে বীমা কোম্পানী যাতে এক পয়সাও না দেয়, সেটা আমি সানফ্রান্সিসকোতে গিয়ে ঠিক করে এসেছি। আর দেখবেন, আমার স্ত্রী আমার আত্মহত্যাকে যাতে অন্যকিছু বলে সাজাতে না পারে।

–আপনি এতটা এগিয়েছেন? আপনি একথা আর কাকে বলেছেন?

–আমার স্ত্রীকে আর গাড়ির ড্রাইভারকে। ড্রাইভারকে বলেছি আমার কথার সাক্ষী রাখার জন্যে।

–ঠিক আছে। তবে আমার কথাটা একটু ভেবে দেখবেন।

ডেসটার রিসিভার নামিয়ে রাখে।

হেলেন তার নিজের ঘরে ডেসটারের চোদ্দপরুষ উদ্ধার করে গালিগালাজ করছে।

ঠিক তখনই বন্দুক ছোঁড়ার আওয়াজ। ন্যাশও গুলির শব্দটা পেল। হেলেন আর ন্যাশ দুজনেই ছুটে গিয়ে দেখল একটা চেয়ারে বসে ডেসটার রগের পাশে গুলি চালিয়েছে। রক্ত চুঁইয়ে পড়ছে।

হেলেনের সাড়ে সাত লাখ ডলার পাবার স্বপ্ন মিটে গেল। সে উভ্রান্ত। সে ভাবে, পুলিশ সন্দেহ করতে পারে, টাকার লোভে সে তার স্বামীকে খুন করেছে। এটা আত্মহত্যা নয়।

-কিন্তু এটাকে খুনের ঘটনা বলে সাজাতে পারলে টাকাটা ঠিক হাতে চলে আসবে। এর জন্যে ন্যাশের সাহায্যের প্রয়োজন। ওকে হাতে রাখতে হবে। নইলে ও পুলিশে সবকিছু জানিয়ে দেবে।

এরপর হেলেন ন্যাশকে নানা ছলাকলায় কাছে বসিয়ে বলে, শোন, আমার কথা মন দিয়ে শোন, বীমার টাকাটা অন্যভাবে আমাদের হাতে আসবে। আর তার জন্যে তোমাকে আমার দরকার। যা পাবো তাতে তোমাকে আমাতে অর্ধেক ভাগ করে নেবো। আর তোমাকে ড্রাইভারী করে খেতে হবে না। তার জন্যে একটু বুদ্ধি খাঁটিয়ে কাজ করতে হবে।

-কিন্তু ধরা পড়লে? ন্যাশ বলে।

-ধরা পড়বো কেন? হেলেন তার দুরন্ত যৌবন উজাড় করে ন্যাশকে নিষ্পেষণ করতে করতে বলে, তাছাড়া আমি তোমাকে ভালোবাসি।

–আমি? তুমি? রাজী হলাম। হেলেন ন্যাশকে চেপে ধরে চুমু দিতে থাকে।

তবে আমি যা বলবো তাই তোমাকে করতে হবে। আর সুবিধামত সাজাবার জন্য সময় চাই। ন্যাশ বলে।

-সে তো নিশ্চয়ই। এমনভাবে সব কিছু করতে হবে, যাতে কেউ কোন ব্লু না পায়। তবে যা করার তাড়াতাড়িই করতে হবে।

দুজনে ঠিক করল, ডেসটারের মৃতদেহটা কিচেনের পাশের ঘর স্টোররুমে একটা বড় ডীপ-ফ্রিজ আছে ওখানে রাখা হবে। তারপর একদিন রাতে এমন নির্জন স্থানে ফেলে রেখে আসা হবে যাতে হট করে লোকের নজরে পড়ার সম্ভাবনা কম।

ন্যাশ তার পকেটে হাত দিতে সেই বার্নেটকে লেখা ডেসটারের চিঠিটা তার হাতে ঠেকে। পোস্ট করা হয়নি।

চিঠিটা খুলে ন্যাশ পড়ল, তাতে স্পষ্ট লেখা জীবনবীমার টাকাটা যেন হেলেন না পায়, সেইজন্য সে আত্মহত্যা করেছে। হেলেন যাতে মিথ্যে কিছু সাজাতে না পারে। চিঠির সইয়ের সাক্ষী হিসাবে তার সেক্রেটারী মিস লেমক্স সই করেছে। চিঠিটা ন্যাশ হেলেনকে দেখালো না।

ন্যাশ ভাবে এই চিঠিটা এবং ডেসটারের রিভালবারটা নিজের কাছে, কোথাও নিরাপদ স্থানে রাখতে হবে।

আপাতত ন্যাশ রুমাল দিয়ে মুড়ে ডেসটারের রিভালবারটা অন্য পকেটে রাখলো। ডেডবডিটা ডিপফ্রিজে রাখা হল।

এরপর ন্যাশ হেলেনকে বলল, একটু বেরোচ্ছি।

-কোথায় যাবে?

–রাতে কোথায় ডেড বডি ফেলে আসতে হবে, সেটা দেখে আসছি। তুমি এখন বাড়িতে থাকো ।

ন্যাশ গ্যারেজ থেকে গাড়ি বার করে সারা রাত খোলা থাকে এমন একটা ব্যাঙ্কে হাজির হলো।

তারপর ম্যানেজারের সঙ্গে দেখা করে, ম্যানেজারের নির্দেশে একটা চিঠি লিখে, ব্যাঙ্কের লকারে ডেসটারের চিঠিটা আর রিভলবারটা জমা করিয়ে দিয়ে এলো।

ন্যাশকে হেলেন পুরোপুরি বিশ্বাস করতে পারছে না। তবে সে এটা বুঝেছে, ও টাকার নেশায় মরিয়া হয়ে উঠছে। ফলে সহজে তাকে ঘাঁটবে না এবং তাকেও ওর মন জুগিয়ে চলতে হবে।

ন্যাশ বাড়িতে ফিরে আসতে হেলেন বলল, তুমি এখানেই শোবে।

ন্যাশ রাজী হয়ে গেল। এরপর দুজন দুরন্ত স্রোতে যেন ভেসে গেল।

সকালে ব্রেকফাস্ট খাওয়ার সময় ন্যাশ হেলেনকে বলল, তোমাদের উকিল কে?

-ওর মুখে একদিন বার্নেটের কথা শুনেছিলাম।

–ওর ফোন নম্বর জানো?

–জানি। তবে কেন? এখনই ওকে খবর দিতে চাইছো কেন?

–ডেসটারের টাকাকড়ি কি আছে, তা জানা দরকার।

–তাহলে পাওনাদাররা যে খবর পেয়ে যাবে।

–ওদের মুখ বন্ধ করার জন্যে কিছু টাকার দরকার। অন্তত হাজার পাঁচেক ডলার দরকার।

শেষ রক্ষা করতে পারলে হয়।

–ঠিক হবে, তুমি শুধু আমার কথামতো চলো, তাহলেই হবে।

–আচ্ছা, ডেসটারের ব্যাপারে সকলে জিগ্যেস করলে কি বলবো? হেলেন জিগ্যেস করে ন্যাশকে।

–উত্তর আমার ভেবে রাখা আছে। বলবে, ডেসটার একটা টেলিভিশন কোম্পানীর চাকরির ব্যাপারে ইনটারভিউ দিতে গেছে। ব্যাপারটাকে এমনভাবে সাজাতে হবে যেন নির্জন স্থানে ডেসটারকে কেউ খুন করেছে। তখন ইনস্যুরেন্স কোম্পানী পয়সা দিতে পথ পাবে না। এক চুল এদিক-ওদিক হলেই হাজতবাস।

-সে তো নিশ্চয়ই, হেলেন বলে।

-শোন, এখন আমার আর ডেসটারের সাক্ষী হিসেবে বাড়িতে একটা কাজের মেয়ে রাখতে হবে।

–একে টাকার অভাব, তাতে কাজের লোক রাখার কি দরকার?

–তাকে বলতে হবে ডেসটার অসুস্থ। কদিন বাদে ডেসটারকে স্যাটেরিয়ামে ভর্তি করা হবে।

–সে যদি ডেসটারকে দেখতে চায়?

–তখন বলবে, ও ঘরে ডাক্তার ছাড়া কারুর যাওয়া বারণ আছে এবং এই অসুখের কথা ও যেন চারদিকে বলে না বেড়ায়। তাহলে ডেসটারের টেলিভিশনের চাকরির কথা গোপন থাকবে না।

এবার একটা কথা, তোমায় কিছু টাকার ব্যবস্থা করতে হবে।

–টাকা আমার কাছে কোথায়? কি হবে টাকা?

–পাওনাদারদের দেনা মেটাতে হবে তো।

–হ্যাঁ, তা তো দরকারই। কিন্তু টাকা…।

-গ্যারেজে তিনটে গাড়ি আছে, ও থেকে একটা গাড়ি বেচে দিতে পারো। গাড়ি বেচেও আরো কিছু টাকা লাগবে। আমি কাজ করে আমার কিছু জমানো টাকা থেকেও কিছু দেব। তুমি তোমার গয়নাগাটি বেচে নয়তো বন্ধক দিয়ে কিছু টাকার জোগাড় করো।

-আমায় রাস্তায় দাঁড়াতে বলছো?

–হেলেন, পাঁচ হাজার ডলারের জন্যে তোমায় রাস্তায় দাঁড়াতে হবে না। তোমার অনেক আছে। লক্ষ্মীটি অরাজী হয়ো না।

-না, না তা হয়না, কিছুতেই হয় না। হেলেন চীৎকার করে।

—ঠিক আছে, আমি চলি। পুলিশে গিয়ে বলবো, তুমি টাকার লোভে ডেসটারকে খুন করেছো। ঠিক আছে, তুমি যা বলছে তাই হবে। হেলেনের কথাটা বলতে বুক ফেটে যাচ্ছে।

থ্যাঙ্ক ইউ। প্রথমে গাড়ি বিক্রী করতে সানফ্রান্সিসকো যাবো। তারপর ফিরে এসে তোমার গহনা বন্ধক দেব, আমার ব্যাঙ্কের টাকাও তুলবো।

ন্যাশ বেরিয়ে গেল।

ন্যাশ বাড়ি ফিরে দেখে হ্যাঁমারস্টক নামের একজন লোক বসে। সে জানাল যে, সে মদের দোকান থেকে এসেছে। মিঃ ডেসটারের কাছে পাওনা টাকা নিতে এসেছে।

ন্যাশ জানালো, ডেসটার বাড়িতে নেই। একটা টেলিভিশন কোম্পানীতে ইন্টারভিউ দিতে গেছে। তবে আপনি বিল দিয়ে টাকা নিয়ে যেতে পারেন। তবে আপনার সঙ্গে আমাদের কারবার এখানেই শেষ। অন্য দোকান থেকে মদ আনবো।

–থাক, থাক। আমার টাকা চাই না। ওনার মতো এমন শাঁসালো মক্কেল হাতছাড়া করা যায়!

-হ্যামারস্টক চলে গেল।

কিছু পরে হেলেন সঙ্গে করে একটি মেয়েকে নিয়ে এল।

ন্যাশ মেয়েটির দিকে তাকায়। বয়স উনিশ-কুড়ি। স্লীম, আকর্ষণীয়, সেক্সি ফিগার। পোশাকে আরো লোভনীয় হয়ে উঠেছে।

জুলিয়ানকে ন্যাশকে দেখিয়ে হেলেন বলল, ওর নাম ন্যাশ। আমাদের ফ্যামিলি ফ্রেণ্ড।

হেলেন ন্যাশকে জুলিয়ানের কাজের দায়িত্ব বুঝিয়ে দিতে বলল।

ন্যাশ বলল, কাজ বলতে তেমন কিছু নয়। মিসেস ডেসটারের স্বামী খুবই অসুস্থ। ওঁকে স্যানটোরিয়ামে ভর্তি করতে হবে। ডাক্তার দিনরাত ওঁকে ওষুধে ঘুম পাড়িয়ে রেখেছেন। বাইরের কেউ যাতে ওঁনার ঘরে না যায়, তা তুমি দেখবে। কারণ তাহলে উনি ভীষণ ক্ষেপে যাবেন। আর মিসেস ডেসটারকে তুমি একটু সঙ্গ দেবে, উনি খুবই অসহায় বোধ করছেন।

 

ন্যাশ ডেসটারের অনুরোধ -হাউস অব ডেথ ( আগাথা ক্রিস্টির অন্যান্য উপন্যাস ) [ অনুবাদ সাহিত্য ]
আগাথা ক্রিস্টি

-ঠিক আছে।

তারপর নির্দিষ্ট দিনে বিকেলের দিকে ন্যাশ গাড়ি রাখার জায়গায় বুইক-টা রেখে পাহারার লোককে বলে, সে রাতে এসে গাড়ি নিয়ে যাবে।

ন্যাশ দৌড়ে বাড়ি এসে শুনল জুলিয়ান বাড়িতে নেই। ন্যাশ হেলেনকে তাড়াতাড়ি তৈরী হয়ে নিতে বলে। এরপর সে দৌড়ে নিজের বাড়িতে যায়। আগেই সে নিজের জামাকাপড় স্যুটকেসে ভরে নিয়েছে। এখন সে ডেসটারের জামা, কাপড়, জুতো, উটের লোমের ওভারকোট এবং কান ও মুখের অনেকটা অংশ জুড়ে থাকা একটা বড় টুপী।

ন্যাশ এখন আর্ল ডেসটার-এ পরিণত হয়েছে। যাকে স্যাটেরিয়ামে ভর্তি করা হবে।

একটু পরেই জুলিয়ান এসে গেল।

হেলেন ওকে চিন্তিত মুখে বলল, তুমি এসে গেছ, ওদিকে ন্যাশের পাত্তা নেই। এদিকে মিঃ ডেসটার তৈরী হয়ে আছেন, তাকে এখুনি নিয়ে যাওয়া দরকার।

–আমি আপনাকে সাহায্য করবো।?

–না, তার কোন দরকার নেই, আমিই ওঁকে আস্তে আস্তে নিয়ে যেতে পারবো।

চমৎকার অভিনয় করছে হেলেন। জুলিয়ান তাকে কোন সন্দেহ করতে পারছে না।

তারপর জুলিয়ানকে বসবার ঘরে বসতে বলে ডেসটারকে আস্তে আস্তে নিচে নামিয়ে আনছে। ন্যাশ টুপিটা মুখের দিকে নামিয়ে দিয়েছে।

সিঁড়ির আলো কমিয়ে দেওয়া হয়েছে। জুলিয়ান শুধু ন্যাশের পিছন দিকটাই দেখছে।

তারপর হেলেন জুলিয়ানের দিকে তাকিয়ে বলে, ন্যাশ এলে বোলো ডেসটারকে নিয়ে স্যানটোরিয়ামে গেছে।

হেলেন গাড়িটা চালিয়ে খানিকটা অন্ধকার জায়গায় এসে গাড়িটা থামায়। স্যুটকেশ সঙ্গে আনা হয়েছে।

ন্যাশ তাড়াতাড়ি ডেসটারের পোশাক ছেড়ে নিজের পোশাক পরে একরকম হাঁপাতে হাঁপাতে ডেসটারের বাড়িতে হাজির হয়ে জুলিয়ানকে দেখে বলে, একটা দরকারী কাজে গেছিলাম। পথে বুইকটা বিগড়ে গেল। শেষে বাসে আসতে হলো।

ন্যাশ জুলিয়ানের মুখে শুনল, ম্যাডাম মিঃ ডেসটারকে নিয়ে স্যানটোরিয়ামে চলে গেছে।

-ম্যাডাম চলে গেছে? ন্যাশ অবাক হবার ভান করল।

–ঠিক আছে তাহলে আমি চলি।

–আমিও যাবো, এই ফাঁকা বাড়িতে আমি একা থাকব না, বলে জুলিয়ান জেদ ধরল। সে কিছুতেই একা থাকতে চাইল না। ন্যাশ অনেক বোঝাবার চেষ্টা করল। তখন ন্যাশ ওকে একটা ঘরে ঢুকিয়ে বাইরে থেকে ছিটকিনি দিয়ে দিল। ন্যাশ আবার গাড়িতে ফিরে এল। হেলেনকে বলল, মেয়েটা ঝামেলা করছিল, দরজা বন্ধ করে দিয়ে এলাম।

হেলেন স্যানটোরিয়ামের দিকে গাড়ি চালাল। ন্যাশ মাথাটা নামিয়ে বসেছে। যাতে চট করে কেউ তাকে দেখতে না পায়। কিছুদূর গিয়ে হেলেন দেখল মোটর সাইকেলে একজন পুলিশ এদিকে আসতে আসতে বাঁ-দিকের রাস্তায় ঢুকে গেল। ওরা স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলল।

ইতিমধ্যে ওরা বন-বিভাগের এলাকায় প্রবেশ করেছে। নির্জন জায়গা, এ জায়গাটা ন্যাশ আগে দেখে গেছে। তারা একটা কুঁড়েঘরের কাছে এসে পৌঁছাল। ঘরটায় তালা দেওয়া আছে। কয়েকটা টান মারতেই তালাটা খুলে গেল।

তারা প্রবেশ করল ঘরে। ঘরের কোণের দিকে তারা কিছুটা দড়ি খুঁজে পেল। ন্যাশ প্ল্যান করেছে হেলেনকে দড়ি দিয়ে বাঁধবে। পরদিন সোমবার। বনবিভাগের লোকেরা এসে হেলেনকে উদ্ধার করবে। হেলেন যেন তাদের কাছে কেঁদে কেটে বলে, সে গুণ্ডাদের হাতে পড়েছিল।

আচমকা ন্যাশ হেলেনের চোয়ালে একটা ঘুষি মেরে বসল। হেলেন ছিটকে পড়ল। বিস্ময়ে হতবাক হেলেন। তার চোয়ালে ভীষণ চোট লেগেছে।

–এভাবে আমাকে মারার অর্থ কি? হেলেন বলে।

বাঃ, তোমাকে দেখাতে হবে না, গুণ্ডারা তোমাকে মারধোর করেছে এবং তুমি ধর্ষিতাও।

–এখন তুমি আমাকে ধর্ষণ করবে নাকি?

-ইচ্ছে তো আছে। কথা শেষ করেই ন্যাশ হেলেনকে আবার একটা ঘুষি মারে। এবারের ঘূষিটা একটু জোর হয়ে গেছে। আসলে সে এখন ভীষণ উত্তেজিত।

হেলেন জ্ঞান হারিয়ে মেঝেতে লুটিয়ে পড়ল, ঠোঁট কেটে রক্ত ঝরছে। ন্যাশ এটাই চাইছিল।

এরপর ন্যাশ অচৈতন্য হেলেনের দেহটা তুলে ধরে ওর চুলগুলো এলোমেলো করে দেয়। ওর স্কাটা খুলে ওর মুখটা বাঁধলো। ফ্রকটা কয়েক জায়গায় ছিড়লো। হেলেনের প্যান্টিটা ছিঁড়ে ছুঁড়ে ফেলে দিল।

যদিও তাকে ধর্ষণের মানসিকতা এখন ন্যাশের নেই, তবুও সে সম্পূর্ণ নগ্ন হয়ে অচৈতন্য হেলেনকে মিনিট খানেকের জন্য ধর্ষণ করেই পোষাক পরে নেয়।

এরপর কুঁড়ে থেকে বেরিয়ে এল। আগেই স্যুটকেসে ডেসটারের পোশাকগুলো ভরে নিয়েছে।

রোলস-টা অন্ধকার গলিতে ফেলে রেখে স্যুটকেশ হাতে বাসস্ট্যাণ্ডের দিকে এগিয়ে যায়। মাথায় চিরুনি বুলিয়ে খানিকটা ভদ্রস্থ হয়ে নিল সে।

বাস ডিপোয় গিয়ে ম্যানেজারের সঙ্গে দেখা করে, নমোন্যাল চার্জ দিয়ে, মিথ্যে পরিচয় দিয়ে ন্যাশ স্যুটকেসটা জমা করে দিলো। আগের রাতের বুইক-টায় সে চড়ে বসল। এরপর সে খানিকটা নিশ্চিন্ত হয়ে ঘরে ফিরল। ইন্টারকমটা বেজে উঠল।

ফোনে জুলিয়ান বলে উঠল, দরজা খুলে দাও।

-হ্যাঁ, এখুনি যাচ্ছি।

তারপর ন্যাশ এসে দরজাটা খুলে জুলিয়ানকে খুশী করার জন্যে ভীষণভাবে আদর করতে লাগল।

এরপর জুলিয়ান বলল, এখন পর্যন্ত হেলেন কোন ফোন করেনি।

-হেলেন ফোন করেনি? ন্যাশ অবাক হবার ভান করে।

–আমি স্যানটোরিয়ামে ফোন কোরেছিলাম, ওরা জানালো, এখনও পর্যন্ত ও নামে কেউ আসেনি। আমার যেন কেমন ভয় করছে।

–ভয়ের কি আছে?

–না, মনটা কু-ডাকছে। তুমি পুলিশে একটা ফোন করো। কেমন যেন গোলমেলে লাগছে।

ন্যাশ ভাবল পুলিশকে ফোন না করলে জুলিয়ান তাকে সন্দেহ করতে পারে, তাই সে ডায়াল ঘোরাতে বাধ্য হল।

পুলিশ ফোন ধরল, হ্যালো।

–আমি আর্ল ডেসটারের বাড়ি থেকে ফোন করছি।

–বলুন কি হয়েছে?

–মিঃ ডেসটারের সঙ্গে ওঁর স্ত্রী গেছেন ওঁকে স্যানটোরিয়ামে ভর্তি করানোর জন্যে, কিন্তু এখনও পর্যন্ত কোন খবর না পেয়ে নার্ভাস ফিল করছি।

-ঠিক আছে, আমরা দেখছি। আপনার নাম কি?

ন্যাশকে এবার নিজের সত্যি নাম জানাতে হল। কারণ জুলিয়ান সামনেই দাঁড়িয়ে আছে।

এরপর ন্যাশ বার্নেটকে ফোন করে ঐ একই কথা বলল। বার্নেট বলে, কি হলো আমায় খবর দিও।

–ঠিক আছে স্যার।

এই নাটকটুকু করতে হলো কেবল জুলিয়ানের মনে যাতে কোনরকম সন্দেহ না জাগে।

একটু পরে ইন্সপেক্টর ব্রমউইচ এবং সাব ইন্সপেক্টর লুইস এল।

ব্রমউইচ ন্যাশকে জিজ্ঞেস করল, এখন বাড়িতে কে কে আছেন?

–আমি আর জুলিয়ান।

–তুমি এখানে কি করো?

ড্রাইভারী করছি প্রায় মাসখানেকের মতো।

–দুজনেরই গাড়ি চালাও?

–হ্যাঁ, তবে মিঃ ডেসটারের বেশী।

–ওরা যখন স্যানটোরিয়ামে গিয়েছিল, তখন তুমি বাড়িতে ছিলে?

না, মিসেস ডেসটার তখন আমাকে একটা কাজে পাঠিয়েছিল।

-তোমার কি মনে হয়, তারা স্যানটোরিয়ামে না গিয়ে অন্য কোথাও যেতে পারে?

-হা স্যার, মিঃ ডেসটার প্রচুর মদ খান। তার চাকরির খবরও ভালো নয়, আবার বাজারে প্রচুর দেনাও আছে। মিঃ ডেসটার আমায় একথা বলেছেন। আমাকে রাখা একটা বাড়তি খরচ মিসেস ডেসটার এ ব্যাপারে হুশিয়ার ছিলেন। তাই আমার মনে হয়, ওরা পালিয়েছে।

 

ন্যাশ ডেসটারের অনুরোধ -হাউস অব ডেথ ( আগাথা ক্রিস্টির অন্যান্য উপন্যাস ) [ অনুবাদ সাহিত্য ]
আগাথা ক্রিস্টি

–পালিয়েছে? কোথায় যেতে পারে?

–তা বলতে পারছি না। আবার নাও পালাতে পারে। এটা শুধু আমার ধারণা।

–এর আগে তুমি কি করতে?

–এক বিজ্ঞাপন কোম্পানীতে কমিশনের ভিত্তিতে কাজ করতাম। কোম্পানীর নামটাও ন্যাশ জানাল।

ব্রমউইচ এবার জুলিয়ানকে জিজ্ঞাসা করল, তোমার নাম?

-জুলিয়ান।

–তুমি এখানে কি করো?

–মিঃ ডেসটার অসুস্থ থাকায়, আমি মিসেস ডেসটারকে কাজে সাহায্য করতাম।

–তুমি মিঃ ডেসটারকে দেখাশুনা করতে না?

-না, স্যার। আমাকে প্রথম দিনেই বলে দেওয়া হয়েছে, ওষুধের জন্য মিঃ ডেসটার রাতদিন ঘুমিয়ে থাকেন। আমি যেন তার ঘরে গিয়ে তাকে বিরক্ত না করি। তাহলে উনি খুব চেঁচামেচি করবেন। আমিও যেতাম না ওঁনার ঘরে।

–আচ্ছা মিঃ ডেসটারকে স্যানটোরিয়ামে কে নিয়ে যায়।

–মিসেস ডেসটার।

–ন্যাশ তখন বাড়িতে ছিল?

–না। মিসেস ডেসটার তাকে একটা কাজে পাঠিয়েছিলেন। ও আমাকে একথা বলেছে।

–তুমি ন্যাশকে ভালোবাসো?

–না, আমার ক্ষেত্রে তা ঘটেনি।

–আচ্ছা, মিঃ ডেসটারকে নিয়ে যাওয়ার সময় তুমি তার মুখ দেখেছিলে।

-না। আমি ওদের পেছনটা দেখেছি। সিঁড়ির আলো তখন কম থাকায়, আমি ভালো করে তাকে দেখতে পাইনি।

–তখন মিঃ ডেসটারের পরণে কি পোশাক ছিল?

জুলিয়ান তার নিখুঁত বিবরণ দিল।

এরপর ন্যাশকে ডাকা হয় আবার।

–তুমি কোথায় থাকো?

–গ্যারেজের উপরে একটা ঘরে।

–আর কেউ থাকে তোমার সঙ্গে।

–না স্যার। আমি একাই থাকি।

ব্রমউইচ ন্যাশের ঘর সার্চ করে সন্দেহজনক কিছুই পেল না।

এরপর ব্রমউইচ মিঃ এ্যাণ্ড মিসেস ডেসটারের ঘর দেখতে চাইল। জুলিয়ান তাকে নিয়ে গেল।

-তুমি রাতদিন এখানে থাকো?

–না। জুলিয়ান বলে।

অন্য সময় কি করো? এখানে কতদিন কাজ করছো?

–কলেজে পড়ি। এখানে দিন কয়েক হলো কাজ করছি।

–তোমার নিশ্চয়ই বয়ফ্রেণ্ড আছে?

–আছে।

–এ বাড়িতে কখনো এসেছে?

–না।

ইদানিং মিঃ এ্যাণ্ড মিসেস ডেসটারের সম্পর্ক কেমন ছিল।

-আমি বলতে পারবো না। আমি এসে থেকেই দেখি মিঃ ডেসটারের ঘর বন্ধ। সুতরাং তাদের আমি কথা বলতে দেখিনি।

ওদের কথার মাঝে ন্যাশ বলল, সম্পর্ক খুব একটা সুবিধের ছিল না। দেনা নিয়ে প্রায়ই ঝগড়াঝাটি হতো। কেউ কাউকে সহ্য করতে পারত না। তবে মিঃ ডেসটার বড় ভালো মানুষ। ওঁকে দুর্ঘটনার হাত থেকে বাঁচিয়েছিলাম বলে উনি আমাকে চাকরি দেন। ওঁরা দুজনে আলাদা ঘরে শুতেন।

মিঃ এ্যাণ্ড মিসেস ডেসটারের ঘরে সন্দেহজনক কিছু পাওয়া গেল না। এরপর মিসেস ডেসটারের ঘরটাও ব্রমউইচ দেখল। তার ঘরে ড্রয়ার খুলতে গহনাগাটি বেরিয়ে পড়ল। অনেক গহনা। মেয়েরা কোথাও পালাতে গেলে এগুলো আগে নেবেই। ব্রমউইচ মন্তব্য করলেন, তাহলে ওরা পালায়নি। দেখা যাক, কোথায় আছে। এরপর তারা আরো কিছু জিজ্ঞাসাবাদ করে চলে গেল।

জুলিয়ান ন্যাশকে বলল, আমি বাড়ি যাবো।

-তুমি চলে গেলে আমি একা হয়ে যাবো। হেলেন নিশ্চয়ই পাওনাদারদের ভয়ে গা ঢাকা দিয়েছে।

–তাহলে তো মাইনেও মার গেল। জুলিয়ান বলে।

-আমারও কম টাকা লোকসান হবে না। তাহলে আমাদের দুজনের তো একই অবস্থা। ন্যাশ এগিয়ে গিয়ে চুমু খায় জুলিয়ানকে। বলে, বাড়িতে একটা খবর দিয়ে দাও ফোন করে।

জুলিয়ানও যেন এ সোহাগটুকু চাইছিল। সে ন্যাশের তপ্ত বুকের মধ্যে মিশে গেল। ন্যাশের যদিও এসব ভালো লাগছে না তবুও জুলিয়ানকে সে দেখাতে চায় যে ওদের চলে যাবার মধ্যে সে নেই। নেই তার মনে পাপও।

জুলিয়ান নিজেকে ন্যাশের কাছ থেকে ছাড়িয়ে বাড়িতে ফোন করে এল।

পরের দিন সোমবার। বেলা গড়িয়ে গেছে।

ন্যাশ অশান্তভাবে ঘরে পায়চারী করছে। জুলিয়ান নগ্ন অবস্থায় শুয়ে ঘুমচ্ছে। তার দিকে তাকিয়ে ন্যাশের এতটুকু উত্তেজনা জাগছে না মনে।

ন্যাশ দেওয়াল ঘড়িতে দেখল অনেক বেলা গড়িয়ে গেছে। হেলেন না আসায় তার আকাশ পাতাল চিন্তা হচ্ছে। এতক্ষণে নিশ্চয়ই বন-বিভাগের লোকেরা কাজে এসে হেলেনকে খুঁজে পেয়েছে।

ন্যাশ বারে গিয়ে হুইস্কি খেল। ভাবে, মনটাকে চাঙ্গা রাখা দরকার।

হঠাৎ কি খেয়াল হতে সে ডায়াল করতে থাকে।

ন্যাশ বার্নেটকে ফোন করে জানাল যে, মিসেস ডেসটার এখনো বাড়ি ফেরেনি। বার্নেট জানাল, তার সঙ্গে পুলিশের বড় কর্তার আলাপ আছে। তাকে সে বলে দেবে। ন্যাশ তাকে ধন্যবাদ জানিয়ে রিসিভার নামিয়ে রাখল।

ন্যাশ এবার জুলিয়ানের দিকে তাকিয়ে দেখল, সে সাংঘাতিক লোভনীয় অবস্থায় এখনও ঘুমিয়ে আছে। ওর কাছে নিজেকে সঁপে দেবার ইচ্ছে ন্যাশের আদৌ নেই।

এখন প্রায় সাড়ে দশটা বাজতে চলেছে। ব্রমউইচের সঙ্গে দেখা করলে হেলেনের কিছু খবর পাওয়া যেত। কিন্তু যাওয়ার আগে জুলিয়ানকে জানিয়ে না গেলে, সে ঘুম থেকে উঠে সন্দেহ করতে পারে।

ন্যাশ জুলিয়ানের কাছে গিয়ে ওকে জড়িয়ে ধরে চুমু খায়। সে ও ন্যাশকে প্রবলভাবে আঁকড়ে নিজের দিকে টানতে থাকে। ও মেয়ে দারুণ সেক্সি।

ন্যাশ তাকে জানায়, হেলেন এখনও ফেরেনি।

–ফিরবে কিনা সন্দেহ আছে। জুলিয়ান বলে।

–একথা বলছো কেন?

–কিডন্যাপ করেছে কিনা কে জানে।

–শোন, আমি এখন থানায় যাচ্ছি। এখুনি চলে আসবো।

জুলিয়ান ন্যাশকে কিছুতেই ছাড়বে না। সে কামনার তীব্র আগুনে তাকে যেন জ্বালিয়ে পুড়িয়ে শেষ করে দিতে চাইছে। ন্যাশও রক্তে-মাংসে গড়া মানুষ। তারও কামনা বাসনা আছে। ন্যাশ ঘন্টাখানেক জুলিয়েনের উষ্ণ সান্নিধ্যে থেকে থানায় গেল।

থানায় গিয়ে ব্রমউইচের সঙ্গে দেখা করে জিজ্ঞেস করল, স্যার মিসেস ডেসটারের কোন খোঁজ পেলেন?

-না, এখনো কোন খবর পাইনি। কর্তা-গিন্নী একেবারে বেপাত্তা। ওঁরা দেনার দায়ে পালিয়েছে। তবে আমাদের দুজন সাইকেল পুলিশ ওদের দেখেছে।

 

ন্যাশ ডেসটারের অনুরোধ -হাউস অব ডেথ ( আগাথা ক্রিস্টির অন্যান্য উপন্যাস ) [ অনুবাদ সাহিত্য ]
আগাথা ক্রিস্টি

–তখন ওরা কোথায় যাচ্ছিল?

–তা ওরা বলতে পারল না। তবে মিসেস ডেসটার রোলস গাড়িটা চালিয়ে যাচ্ছিল।

–স্যুটকেসটা পাওয়া গেছে?

–না, পাওয়া যায়ান।

–মিঃ ডেসটারের পক্ষে অসুস্থ অবস্থায় পালিয়ে যাওয়াও তো সম্ভব নয়।

তবে ধরা পড়ে যাবে।

–মিস জুলিয়ান বলছিল, কেউ ওদের কিডন্যাপ করতে পারে।

–না জানা পর্যন্ত কিছু বলা যাচ্ছে না।

–আমি চলি স্যার।

ন্যাশ থানা থেকে বেরিয়ে আসে।

রাস্তায় খানিকক্ষণ ঘুরে সে বাড়ি ফিরে আসে।

জুলিয়ান নগ্ন অবস্থায় একটা ম্যাগাজিন পড়ছিল।

ন্যাশ জানতে চায় কেউ এসেছিল?

-না।

–কেউ ফোন করেছিল?

—উঁহু, বলে জুলিয়ান ন্যাশকে জড়িয়ে ধরে খাটের দিকে টেনে নিয়ে গেল। ন্যাশও তাকে দেখে উত্তেজিত হয়ে পড়েছে। ফলে একে অপরকে চরম সুখের মাঝে মিলিয়ে দিতে থাকল।

তবু ন্যাশের মনে উৎকণ্ঠা। ফলে আর এসময় জুলিয়ানের উষ্ণ সান্নিধ্য তার ভালো লাগছে না।

ন্যাশ বেরোবার জন্যে তৈরী হতে থাকলে জুলিয়ান তাকে ছাড়তে চায় না। জুলিয়ান জেদ ধরে তাকে খেয়ে-দেয়ে যেতে হবে। লাঞ্চের পর জুলিয়ান ন্যাশকে নিয়ে আবার মেতে উঠলো। এটা সে আগেই ভেবে রেখেছিল। ন্যাশ প্রথমটা না না করেও পরে ওকে তুষ্ট করে। তারপর ন্যাশ কখন ঘুমিয়ে পড়ে। যখন ঘুম ভাঙলো অন্ধকার নেমে এসেছে। জুলিয়ানকে দেখলো, তখনও অকাতরে ঘুমচ্ছে।

ন্যাশ বুইক-টা নিয়ে বেরুলো এবং গাড়িটা একটা গোপন জায়গায় সে রাখবে যেখান থেকে সহজে কারোর নজরে আসবে না এবং কোথায় রাখবে তাও সে মনে ঠিক করে নিয়েছে।

ন্যাশ একটা ঢিপির আড়ালে বুইক-টা চালিয়ে রাখল। তার সঙ্গে সে একটা পেনসিল টর্চ এনেছে। ন্যাশ চারদিকটা আগে ভালো করে দেখে নিল। এত দূরে নিশ্চয়ই পুলিশ পাহারা থাকবে না। ধারে-কাছে কাউকে দেখতে না পেয়ে সে নিঃশব্দে হেঁটে বনবিভাগের নির্দিষ্ট ঘরটার সামনে এসে দাঁড়ায়। হঠাৎ ন্যাশের মনে হয়, ওখানে পুলিশ ওঁৎ পেতে বসে নেই তো? থাকলে সঙ্গে সঙ্গে গ্রেফতার করবে। তবু ন্যাশ ফিরে যেতে পারে না। এতটা পথ এসে কুঁড়েটা না দেখে সে ফিরে যাবে না, কপালে যাই থাক।

ঘরে ঢুকে ন্যাশ দেখল হেলেন ঘরের মাঝে মুখ থুবড়ে পড়ে আছে। ন্যাশ বলে হেলেন কি এখন ঘুমচ্ছে? তার পায়ের শব্দ টের পায়নি?

ন্যাশ হেলেনের গায়ে হাত দিয়ে হাতটা সরিয়ে নেয়। সে চমকে উঠল। আবার সে হাত রাখে, যাচাই করার জন্যে।

ন্যাশ বুঝলো হেলেন আর বেঁচে নেই। আসলে তারই উত্তেজনার বশে জোরে মারা ঘুষিতেই হেলেন প্রাণ হারিয়েছে।

এখন তাকে এখান থেকে পালাতে হবে। ন্যাশের মধ্যে একটা মৃত্যুভয় দানা বেঁধেছে।

ন্যাশ বেরতে যাবে, এমন সময় দেখল একটা লাল আলো জ্বালিয়ে পুলিশের গাড়ি এদিকেই আসছে। এখন পালাতে যাওয়া মানে নিজেকে পুলিশের হাতে তুলে দেওয়া।

হঠাৎ ন্যাশের নজরে পড়ল দেওয়ালের দিকে চারটে মুখ খোলা পিপে রয়েছে। ওর একটাতে সে ঢুকে পড়ে।

ব্রমউইচ এবং লুইস এখানে এসে হেলেনকে পড়ে থাকা অবস্থায় দেখল। তারা পরীক্ষা করে দেখল হেলেন মারা গেছে। ব্রমউইচ বলল, ভাবছি মিসেস ডেসটারকে কে বা কারা খুন করল। কেসটা যদি কিডন্যাপিং হয় তাহলে কাছে-পিঠে মিঃ ডেসটারের লাশ পড়ে থাকার কথা। ব্যাপার খুব জটিল মনে হচ্ছে।

কুঁড়ে ঘর হলেও পাশের ঘরে ফোন আছে। ব্রমউইচ বড়সাহেবকে ফোন করল।

–স্যার মিসেস ডেসটারের খোঁজ আমরা পেয়েছি। তবে সে মৃত।

–ডেড? বড় সাহেবের মুখ কুঁচকে ওঠে।

–হ্যাঁ স্যার, আমরা খুব চেষ্টা চালাচ্ছি। সংবাদ মাধ্যমগুলো যেভাবে আমাদের সমার্লোচনা করতে শুরু করেছে, তা বন্ধ করতে আমরা চেষ্টার কোন ত্রুটি করবো না স্যার।

-খবর পাওয়া মাত্রই আমাকে জানাবে।

নিশ্চয়ই স্যার। এবার বডিটা সরাতে হবে।

–ঠিক আছে, আমি গাড়ি পাঠাচ্ছি।

ব্যাপার খুব ইলেও পারের খোঁজ ওঠে।

–থ্যাঙ্ক ইউ, স্যার।

ব্রমউইচ ফোন রেখে দিল। ঘর ছেড়ে তারা বেরিয়ে যেতেই ন্যাশ পিপে থেকে বেরিয়ে এদিক-ওদিক তাকিয়ে বাইরের বারান্দায় এসে দাঁড়ায়। তাড়াতাড়ি ঝোঁপ-ঝাড়ের মধ্যে দিয়ে বুকে হেঁটে সে সামনের দিকে এগিয়ে যায়। তার হাত-পা ছড়ে যাচ্ছে। রক্তও বের হচ্ছে দু-একটা জায়গা থেকে। একটা কাঁটার তারে বাঁ-হাতের জামাটাও ছিঁড়ে গেল।

পুলিশের গাড়িটাকে চলে যেতে দেখেই মাটি থেকে উঠে একরকম দৌড়তে থাকে ন্যাশ। কোনরকমে ঢিপিটার কাছে পৌঁছে, তাড়াতাড়ি বুইক-টায় উঠে সে স্টার্ট দেয়। ভীষণ জোরে গাড়ি চালাচ্ছে সে। অনেকটা পথ পেরিয়ে সে একটা ফাঁকা জায়গায় এল।

সে পার্কিং জোন খুঁজতে থাকে। ইতিমধ্যে চুলটাও সে আঁচড়ে নিল। এভাবে বাড়িতে ঢুকলে জুলিয়ান জেরায় জেরায় তাকে অস্থির করে তুলবে। যদিও ন্যাশ তাকে ভয় পায় না। জড়িয়ে ধরে কয়েকটা চুমু খেলেই সে উত্তেজিত হয়ে পড়বে। সে ওষুধ তার জানা আছে। কিন্তু জামা কাপড়ের এমন অবস্থার সপক্ষে একটা সঠিক উত্তর তাকে খাড়া করতে হবে।

কিন্তু কি কথা বলবে? ন্যাশ ভাবতে থাকে।

একটু আগে এক পশলা বৃষ্টির ফলে রাস্তায় দু-এক জায়গায় জল জমে আছে।

ন্যাশ তাড়াতাড়ি গাড়ি থেকে নেমে সামনের একটা সিগারেটের দোকানের দিকে এগোতে গিয়ে ইচ্ছে করে পড়ে গেল।

সিগারেট বিক্রেতা তাড়াতাড়ি ছুটে এসে তাকে তুলে ধরে। জিজ্ঞেস করে, লাগেনি তো?

-না, তেমন লাগেনি। দু-এক জায়গা ছিঁড়ে গিয়ে সামান্য জ্বালা করছে। আমি বাড়ি গিয়ে ফাস্ট-এইড করে নেব। বলে ধন্যবাদ জানিয়ে ন্যাশ আবার গাড়িতে উঠে গাড়িতে স্টার্ট দেয়। এখন তাকে সাক্ষী-সাবুত তৈরী রেখে কাজে এগোতে হবে। যাতে সে ধরা-ছোঁয়ার বাইরে থাকতে পারে।

বাড়ি ফিরতে জুলিয়ান-কি করে তোমার অবস্থা হোল জিজ্ঞেস করায় ন্যাশ বলল, তাড়াতাড়ি করে গাড়ি থেকে নামতে গিয়ে পিছল রাস্তায় পড়ে গেছি। সিগারেটের দোকানের লোকটা এসে আমাকে তুলল।

–এত তাড়াহুড়োর কি আছে?

-করবো না? তোমাকে বলে গেছি এখুনি আসবো। ঐ তাড়াতাড়ি আসতে গিয়েই যত গণ্ডগোল।

-তুমি আমায় খুব ভালোবাসো না? জুলিয়ান ন্যাশকে জড়িয়ে ধরে জিজ্ঞেস করে। ন্যাশও শরীরের ভাষায় তা জুলিয়ানকে বুঝিয়ে দেয়।

এরই মধ্যে ন্যাশ জিজ্ঞেস করে, কেউ ফোন করেছিল। জুলিয়ান মাথা নেড়ে বলে, এক পাওনাদার। ন্যাশ তখন কেউ দেখা করতে এসেছিল কিনা জিজ্ঞেস করায় জুলিয়ান বলে, উঁহু, বলে সে ন্যাশকে নগ্ন করে নিয়ে বিছানায় ঝাঁপিয়ে পড়ে। খানিকক্ষণ খুশীর জোয়ারের উষ্ণ খেলায় মেতে থাকার পর ন্যাশ উঠে পড়ে পাশের ঘরের বিছানায় এসে শুয়ে পড়ে। তার মাথা ঝিমঝিম করছে। শরীরটাকে চাঙ্গা রাখতে সে অনেকটা হুইস্কি খেয়ে নেয়।

হেলেন মারা গিয়ে তার সমস্ত প্ল্যান ভেস্তে গেছে।

ন্যাশ ভাবে, ডেসটারকে ফ্রিজে রাখার সিদ্ধান্ত নিয়ে সে সঠিক পদক্ষেপ নেয়নি। মৃতদেহটা বাগানে ফেলে রাখলে ক্ষতি কি হতো?

কোন ক্ষতি ছিল না। পুলিশ ভাবতো বউকে খুন করার পর অনুতপ্ত হয়ে ডেসটার আত্মহত্যা করেছে।

ন্যাশ আরো মদ খায়। এ মুহূর্তে সে সব কিছু ভুলতে চায়। কী দরকার ছিল ডেসটারকে নিশ্চিত মৃত্যুর হাত থেকে বাঁচানোর? সে তো পরবর্তীকালে নিজের মৃত্যু চাইছিল আর মরলোও। আর তাকেও ফাঁসিয়ে গেল। এখন ভাগ্যের নিষ্ঠুর পরিহাসে সে নিজের জালেই নিজে জড়িয়ে পড়েছে।

ন্যাশ ভাবে। এখান থেকে কি সে পালিয়ে যাবে। কিন্তু সাড়ে সাত লাখ ডলারের লোভ ছেড়ে পালাতে তার মন চায় না।

হঠাৎ ন্যাশের মনে পড়ে ব্যাঙ্কের লকারের পিস্তলটার কথা। একটু পরে সে ব্যাঙ্ক ম্যানেজারের সঙ্গে দেখা করে, সংশ্লিষ্ট কর্মীর কাছে গিয়ে আস্তে আস্তে জিগ্যেস করে যে, তার লকারের নাম্বারটার ব্যাপারে কেউ খোঁজ করতে এসেছিল কিনা।কর্মীটি জানায়, না।ন্যাশ পিস্তলটা ফেরৎ নিয়ে বুইক-টা চালিয়ে বাড়ি ফিরে আসে। এসে দেখল জুলিয়ান তখনো ঘুমোচ্ছে। ন্যাশ সেই সুযোগে বাইরের পোশাক বদলে বাড়ির পোশাক পরে জুলিয়ানের কাছে গিয়ে ওকে আদর করতে থাকে। জুলিয়ান জেগে ওঠে। তখন রাত নটা। দুজনে ডিনার খেতে বসলো। ন্যাশ নিজে অল্প অল্প খেলেও জুলিয়ানকে সে বারেবারে প্রচুর মদ খাইয়ে দিচ্ছে গল্পোচ্ছলে।

এরপর ন্যাশের মুখে প্রেমের বুলি শুনতে শুনতে জুলিয়ান একসময় অঘোরে ঘুমিয়ে পড়ে। ন্যাশ ওর মদের গ্লাসে ঘুমের হাল্কা ওষুধ মিশিয়ে দিয়েছিল।

ন্যাশ চারদিকটা একবার তাকিয়ে নিয়ে ডীপ ফ্রিজের দিকে এগিয়ে যায়। ফ্রিজটা কিছুক্ষণ বন্ধ রাখলেই লাশটা স্বাভাবিক হয়ে উঠবে। তারপরে বাগানে নিয়ে গিয়ে ঝোঁপের মধ্যে ফেলে রেখে শুন্যে একটা গুলি ছুঁড়ে ডেসটারের হাতে পিস্তলটা ধরিয়ে দিতে পারলেই হলো।

ন্যাশ ফ্রিজটা ফাঁক করে দেখে নেয় দেহটা অবিকৃতই আছে, তারপর বন্ধ করে দেয়। ফ্রিজের সুইচটা অফ করে দেয়।

বাগানে গিয়ে সে দেখে ডেসটারের দেহটা কোথায় ফেলে রাখা যায়। এরপর রাত প্রায় বারোটায় সে জুলিয়ানের পাশে গিয়ে শুয়ে পড়ল।

পরের দিন দুজনেরই বেলা করে ঘুম ভাঙলো।

ন্যাশ জুলিয়ানকে ডেসটারের কাগজপত্র গোছানোর ব্যাপারে সাহায্য করতে বলল।

জুলিয়ান রাজী হলো। কাগজপত্র ঘেঁটে তারা অনেকগুলো বিল আর একটা মুখআঁটা খাম পেল। জুলিয়ান জিগ্যেস করে, ওটা কি?

-উইল, ডেসটারের উইল। এটা বার্নেটকে দিতে হবে। ন্যাশ সাধু সাজে।

–হ্যাঁ। সেটা মনে হয় গণ্ডগোলে। নইলে স্বামী-স্ত্রী ওভাবে কখনো গা ঢাকা দেয়?

হঠাৎ বাড়ির সামনের দৃশ্যটা পাল্টে গেল। গাড়ি থেকে নামল উকিল বার্নেট, পুলিশের বড় কর্তা ইভান্স, ব্রমউইচ, সাব ইন্সপেক্টর লুইস, বীমা কোম্পানীর মিঃ ম্যাডক্স।

বার্নেট ন্যাশের সঙ্গে ম্যাডক্স-এর পরিচয় করিয়ে দিল।

 

ন্যাশ ডেসটারের অনুরোধ -হাউস অব ডেথ ( আগাথা ক্রিস্টির অন্যান্য উপন্যাস ) [ অনুবাদ সাহিত্য ]
আগাথা ক্রিস্টি

-আচ্ছা মিঃ ডেসটার খুব অসুস্থ হয়ে পড়েছিলেন, তাই না?

–হ্যাঁ।

সারাদিন উনি কি করতেন?

–প্রায় সারাক্ষণই উনি ঘুমিয়ে থাকতেন। বাইরের কেউ ওঁর ঘরে গেলে ক্ষেপে যেতেন।

–ওঁর দেখাশোনা কে করতেন?

–মিসেস ডেসটার, মাঝে মধ্যে আমিও।

–আপনাকে দেখলে উনি কিছু বলতেন না?

–না, আমি তো বাইরের লোক নই।

–মিঃ ডেসটারকে চিকিৎসার জন্যে কোথাও নিয়ে যাওয়া হয়েছে?

—হ্যাঁ, স্যানটোরিয়ামে।

-কে নিয়ে গিয়েছিল তাকে?

–মিসেস ডেসটার।

–তখন আপনি সঙ্গে যাননি?

–না, কারণ তখন আমি বাড়ি ছিলাম না।

–কোথায় ছিলেন?

–মিসেস ডেসটারের জন্য ঘরের কিছু কেনাকাটা করতে গেছিলাম।

মিসেস ডেসটারকে কাজে কে সাহায্য করতে?

মিস জুলিয়ান।

একটু পরে জুলিয়ান এল।

-আপনি এ বাড়িতে কতদিন আছেন?

–বেশী দিন নয়, সপ্তাহখানেক।

–মিঃ ডেসটারকে কে স্যানটোরিয়ামে নিয়ে যায়?

–মিসেস ডেসটার।

–আপনি তখন বাড়িতে ছিলেন?

–হ্যাঁ।

–সিঁড়ি দিয়ে নামবার সময় মিসেস ডেসটার আপনার সঙ্গে কোন কথা বলেছিলেন?

–সিঁড়িতে বেশী পাওয়ারের আলো নিভিয়ে দিতে বলেছিলেন। কম পাওয়ারের আলো জ্বলছিল।

–তখন মিঃ ডেসটারের গায়ে কি ধরনের পোশাক ছিল?

–উটের লোমের কোট, চওড়া কানওয়ালা টুপী, ধূসর স্যুট, সোয়েডের জুতো।

মিঃ ন্যাশ তখন বাড়িতে ছিলেন?

–না। ওরা বেরিয়ে যাবার পর ফেরে। ওরা বেরিয়ে গেছে শুনে ও বেরিয়ে যায়।

–ঠিক আছে, আপনি যেতে পারেন। জুলিয়ান বিদায় নেয়।

ম্যাডক্স ব্রমউইচ বলে, মিঃ ডেসটার স্ত্রীকে বিশ্বাস করতেন না। তিনি নিজেই আত্মহত্যার শর্ত বাতিল করেন। মিসেস ডেসটার টমলিন নামের একটা লোকের রক্ষিতা ছিলেন। টমলিন বিশ হাজার ডলারের বীমা করে প্রথম প্রিমিয়াম দেবার পরেই জানালা দিয়ে পড়ে মারা যান। নমিনি করে মিসেস ডেসটারকে। ঝামেলা এড়াতে মিসেস ডেসটার সাত হাজারেই তার দাবী মিটিয়ে নেয়।

এর আগে মিসেস ডেসটার এক বুড়ির সঙ্গিনী হিসেবে কাজ করতেন। বুড়ি পাঁচ হাজার ডলারের বীমা করেছিল এবং নমিনি ছিল মিসেস ডেসটার। কয়েকদিন বাদে দেখা গেল, বুড়ি সিঁড়ি দিয়ে পড়ে গিয়ে ঘাড় মটকে পড়ে রয়েছেন। মিসেস ডেসটার টাকা নিয়ে সরে পড়েন। অতএব মিসেস ডেসটার ডবল খুনী। তিনি যে মিঃ ডেসটারের জীবনবীমার ব্যাপারে কিছু জানবেন না এটা বিশ্বাস করা কঠিন। মিসেস ডেসটার যদি মিঃ ডেসটারকে খুন করতেন অন্য কথা, মিসেস ডেসটারকে কে খুন করলো? মিঃ ডেসটারই বা কোথায়? কিডন্যাপ করে তাকেও কি খুন করা হয়েছে? আমার ধারণা এই নিখুঁত পরিকল্পনার পেছনে তৃতীয় এক ব্যক্তির মাথা কাজ করছে। তাকে খুঁজে বার করার চেষ্টা করুন। আর এ বাড়িতে পাহারার ব্যবস্থা করান। মিঃ ডেসটার কি উইল করে গেছেন? গেলে ওয়ারিশাণ কাকে করেছে, এগুলো জানা দরকার। ম্যাডক্স আবার ন্যাশকে ডেকে পাঠায়।

ম্যাডক্স তাকে জিজ্ঞেস করে, মিঃ ডেসটার কি কোন উইল করে গেছেন?

–উইল? না স্যার, তা আমার জানা নেই।

–ঠিক আছে, এবার আমরা উঠবো।

তারা সকলে বিদায় নেয়।

শেষটা ভালোয় ভালো না মেটা পর্যন্ত ন্যাশ ভালো করে ঘুমতে পারে না। বিছানায় ছটফট করে।

তার পরের দিন ব্রেকফাস্টের পর ন্যাশ জুলিয়ানকে বলে, চলো, ডেসটারের স্টাডিরুমে যাই।

-কেন ওখানে গিয়ে কি হবে?

দরকার আছে। ধরো উইলে ডেসটার যদি আমায় সমস্ত কিছু দিয়ে গিয়ে থাকে তাহলে কি হবে বুঝতে পারছো?

–ভালই তো হবে, তোমার আর কোনও অভাব থাকবে না।

–ফাঁসিকাঠে ঝুলতে হবে আমাকে। কেন? ধরো, ডেসটার আমায় সমস্ত কিছু দিয়ে গেল, তাহলে ডেসটারের নিখোঁজ হওয়ার জন্য আমায় পুরোপুরি সন্দেহ করবে।

সন্দেহ? তোমাকে? কেন?

করবে এই কারণে যে, এর পিছনে আমার কোন গোপন হাত থাকতে পারে; এরকম একটা সন্দেহ করবে বই কি! ম্যাডক্স বলছে, এর মধ্যে তৃতীয় কোন ব্যক্তি চাল চেলে সাধু সেজে বসে আছে।

–তৃতীয় ব্যক্তি?

–হ্যাঁ, আমিও ভাবছি সে কে? সেজন্য উইলটা সবার আগে দেখা দরকার।

ন্যাশ একটু থেমে জুলিয়ানের দিকে তাকিয়ে আবেগভরে বলে, জুলিয়ান, এইসব ঝামেলা মিটে গেলে, আমি…আমি তোমায় বিয়ে করতে চাই। তুমি রাজী তো?

জুলিয়ান ন্যাশের বুকের ওপর ঝাঁপিয়ে পড়ে তাকে সংঘাতিক ভাবে আদর করতে থাকে। মুখে বলে, ন্যাশ! রাজী! রাজী! রাজী!

ন্যাশ এরপর একটা খাম ছিঁড়ে উইলটা পড়ে এবং তার পরে তার চক্ষু চড়কগাছ।

–আমার মৃত্যু কেউ ঠেকাতে পারবে না, ন্যাশ মুখ শুকনো করে বলে।

জুলিয়ান বলে, তুমি একথা বলছো কেন?

 

ন্যাশ ডেসটারের অনুরোধ -হাউস অব ডেথ ( আগাথা ক্রিস্টির অন্যান্য উপন্যাস ) [ অনুবাদ সাহিত্য ]
আগাথা ক্রিস্টি

ন্যাশ তখন উইলটা পড়ে, ডেসটার লিখেছে–ন্যাশ তার জীবন বাঁচিয়েছে। হেলেন তাকে অনেকবার মারার চেষ্টা করেছে, পারেনি। দেনাপত্তর শোধ করে যা কিছু অবশিষ্ট থাকবে, তা সবই ন্যাশ পাবে। জীবনবীমা কোম্পানী যদি তার মৃত্যুর পর কিছু টাকা দেয় তাও ন্যাশ পাবে। পড়া হয়ে যেতে ন্যাশ ঠিক করে, এটা বার্নেটকে দেওয়া চলবে না।

তখন সে ঘরের মেঝেতে উইলটাকে পুড়িয়ে ফেলে ছাইটা পায়খানায় ফেলে, বেশ কয়েকবার সিসটেনে টান মারল। জলের তোড়ে ছাইটা কোথায় মিলিয়ে গেল।

এরপর খানিকটা স্বস্তি পেয়ে ন্যাশ জুলিয়ানকে জড়িয়ে ধরে চুমু খায়। করতে বাধ্য হচ্ছে কারণ উইলের ব্যাপারটা জুলিয়ান জেনে ফেলেছে। খামে কি আছে ওকে না জানালেও হয়তো একথা অন্যকে বলে বসতো।

জুলিয়ান আনন্দে বিভোর হয়ে ওঠে। ন্যাশ তাকে প্রেমের কথা বলে চলেছে আর বেশী করে মদ খাওয়াচ্ছে। একসময় ও বেহুশ হয়ে বিছানায় লুটিয়ে পড়ে। ন্যাশের মাথায় একটা বুদ্ধি এসেছে, যেটা জুলিয়ানকে জানানো ঠিক হবে ভেবেই এই ব্যবস্থা তাকে নিতে হয়েছে।

ন্যাশ লকারের পিস্তলটায় কয়েকটা গুলিও ভরে নিয়েছে। পরে কাজে লাগবে জেনে।

ন্যাশ ঘর থেকে বেরিয়ে দরজাটা ভেজিয়ে দেয়।

জানালা দিয়ে দেখে, ব্রমউইচ চলে গেল। যাবার আগে লুইসকে যেন ভাবভঙ্গীতে পাহারায় বসে থাকতে বলল। ন্যাশ মনে মনে ওদের চোদ্দ পুরুষ উদ্ধার করতে থাকে।

খানিকক্ষণ পরে ন্যাশ দেখে লুইস টুলে বসে ঝিমোচ্ছে।

ন্যাশ স্টাডিরুমে ফিরে এল। ডেসটারের কাগজপত্র একটু আগে ঘেঁটেছিল, সেগুলো গুছিয়ে রাখল। সে দরজাটা ভেজিয়ে দিল। একজোড়া দস্তানা হাতে পরে নিয়ে সে একটা চিঠি টাইপ করল। টাইপের বয়ান হল–হেলেনকে ডেসটার এত জোরে মারতে চায়নি। হেলেন মারা যেতে অনুশোচনায় তার মন ভরে যেতে সে আত্মহত্যার পথ বেছে নিচ্ছে। চিঠিটা টাইপরাইটারে লাগিয়ে রেখে সে আলো নিভিয়ে ঘর থেকে বেরিয়ে এল। জুলিয়ানের ঘরে এল। সে এখনও ঘুমোচ্ছে।

হঠাৎ ন্যাশ দেখল, লুইস বাড়ির মধ্যে চলে এসেছে। সে মুহূর্তে নিজেকে সামলে নিয়ে এক গাল হেসে বলল, আসুন স্যার। স্যার বলায় লুইস খুশী হলো। ন্যাশ তাকে স্যাণ্ডউইচ হুইস্কি খাওয়ালো। এমন অভ্যর্থনা লুইস মোটেই আশা করেনি। এরপর সে চলে গেল।

লুইস চলে যাবার পর জুলিয়ান ন্যাশকে জিজ্ঞেস করল, লুইস এসেছিল কেন?

–কি জানি কি মতলবে এসেছিল।

–আমার পুলিশ-টুলিশ বড্ড ভয় করছে। আমার এখানে থাকতে ইচ্ছে করছে না।

-ও কথা বলে না ডার্লিং, মুখে ন্যাশ একথা বললেও মনে মনে সে চাইছে জুলিয়ান বাড়ি চলে যাক। কিন্তু এককথায় রাজী হয়ে গেলে ও আবার সন্দেহ করতে পারে। এরপর ন্যাশ বলে, জুলিয়ান তুমি কোথায় থাকতে চাও বলো।

জুলিয়ান ইতস্তত করে বলে, আমি…আমি…তোমার গ্যারেজ ঘরে থাকতে চাই।

–গ্যারেজ? তুমি শোবে? না না তা হয় না।

–কেন হয় না? জুলিয়ান বলে।

–ঠিক আছে, মানতে পারি, তবে শুধু আজকের দিনের জন্য।

ডিনারের পর জুলিয়ানকে গ্যারেজের ঘরে ছেড়ে দিয়ে আসে ন্যাশ।

বাড়ি ফিরে ন্যাশ ঘরে পায়চারী করতে থাকে। কখন লুইস ঘুমিয়ে পড়বে সেই অপেক্ষায় আছে সে। এখন রাত একটা। একসময় লুইস ঘুমিয়ে পড়ল। ন্যাশ খুব আস্তে আস্তে নীচে নেমে এসে ফ্রিজ থেকে ডেসটারের মৃতদেহ বার করে মেঝেতে রাখে। তারপর রান্নাঘর থেকে পেরিয়ে ডেসটারের স্টাডিরুমের আলো জ্বালিয়ে রেখে এসে ওর দেহটা কোনরকমে টেনে ঐ ঘরে বয়ে নিয়ে আসে। ফ্রিজ বন্ধ করে দেওয়ার ফলে লাশটা ক্রমশ নরম হয়ে আসছে। ডেসটারের কপালের ক্ষত চুঁইয়ে রক্ত গড়িয়ে পড়ছে। এরপর সে আলো নিভিয়ে রান্নাঘরে ফিরে আসে।

ন্যাশ ফ্রিজটা খোলে। ফ্রিজের মধ্যে, কার্পেটের উপর দু-এক ফোঁটা রক্ত পড়েছে। সে একটা কাপড় দিয়ে রক্তগুলো মুছে দিল।

হঠাৎ কাঁচ করে একটা শব্দ হতে ন্যাশ সাবধান হয়ে ওঠে। রান্নাঘরের আলো নিভিয়ে ভাড়ার ঘরের দরজার আড়ালে গিয়ে দাঁড়ায়। হাতে একটা হুইস্কির বোতল। ভাবটা এমন যেন এই রাতে সে মদ খেতেই এখানে এসেছে। তার মনের মধ্যে কোন কিছু পাপ নেই।

লুইস দরজায় আচমকা ধাক্কা দেয়। তার হাতে পিস্তল। দরজাটা খুলে যায়। সে পিস্তল উচিয়ে ভাঁড়ারের দরজার দিকে ঘুরে চেঁচিয়ে ওঠে, মিঃ ডেসটার, মাথার ওপর হাত তুলে বেরিয়ে আসুন। কোন সাড়া-শব্দ নেই। লুইস একটু অপেক্ষা করে কোন জবাব না পেয়ে দু-এক সেকেণ্ড অপেক্ষা করে সে ভঁড়ার ঘরের দরজায় লাথি মারে। ফলে দরজাটা খুলে গেল। ওর পিছনটা ন্যাশের দিকে ফেরানো।

ন্যাশ মরীয়া হয়ে ভাবে তার এখন একটা কিছু করা দরকার। সে লুইসের মাথার ওপর দিয়ে হুইস্কির বোতলটা অপর দিকের দেওয়ালের দিকে ছুঁড়ে মারে। এতে লুইস হকচকিয়ে যায়। চকিতে ন্যাশ তার পিস্তলের বাঁট দিয়ে সজোরে মাথায় আঘাত করে। লুইস পড়ে যায়। ন্যাশ আবার আঘাত করতে সে লুটিয়ে পড়ে।

এরপর ভাঁড়ার ঘরের ছিটকিনি তুলে ন্যাশ স্টাডিরুমে ঢুকে ডেসটারের গায়ে হাত দিয়ে দেখে দেহ নরম হয়ে আসছে। কপালের ফুটো দিয়ে রক্ত চুঁইয়ে পড়ছে।

ন্যাশের হাতে দস্তানা পড়াই আছে। সেই হাতে পকেট থেকে পিস্তল বের করে খোলা জানালা দিয়ে একটা গুলি ছোঁড়ে।

তারপর ন্যাশ দ্রুত জানালার ছিটকানি লাগিয়ে ডেসটারের মৃতদেহের পাশে পিস্তলটা রেখে দরজাটা বন্ধ করে বেরিয়ে আসে। নিজের ঘরে চলে আসে, তার দস্তানা, পাজামায় রক্ত লেগেছে। সে তাড়াতাড়ি সেগুলো জাজিমের তলায় রেখে দেয়। এরপর পোশাক পাল্টে নেয়। নীচে নেমে এসে জুলিয়ানকে ফোন করে ডেসটারের আত্মহত্যার কথা জানালো। জুলিয়ান তার কাছে আসছে বলে জানাল। সে খুব চমকে গেছে।

এরপর ন্যাশ ব্রমউইচকে ফোন করল। একই খবর তাকে দিল।

প্রায় সঙ্গে সঙ্গে ব্রমউইচ পুলিশ ভ্যানে হাজির হলো। লুইসকে পাহারায় দেখতে না পেয়ে সে অবাক হলো। পরে সে তাকে খুঁজে বার করল।

এরপর ব্রমউইচ জুলিয়ানের খোঁজ করতে ন্যাশ জানালো সে গ্যারেজ ঘরে শুতে গিয়েছে। আজই ওখানে গেছে। তার এখানে শুতে ভয় করছিল তাই ওখানে শুতে গেছে। প্রথমে সে চলে যেতে চাইছিল, শেষে আমি অনেক করে বলতে তবে ওখানে শুতে রাজী হলো। জুলিয়ান আসতে ওকে জিগ্যেস করায় ও একই কথা জানালো।

–তুমি কোন গুলির আওয়াজ শুনেছো?

–শুনেছি। জুলিয়ান বলে।

–কাল তোমার সঙ্গে ন্যাশ ছিল।

–না।

এরপর ন্যাশের দিকে তাকিয়ে ব্রমউইচ জিগ্যেস করে, তুমি গুলির আওয়াজ শুনেছো?

–নিশ্চয়ই স্যার, ন্যাশ ভেতরে ভেতরে কাঁপছে।

–তারপর কি করলে।

–স্টাডিরুমে গিয়ে দেখি মিঃ ডেসটার এলিয়ে পড়ে আছে। সঙ্গে সঙ্গে জুলিয়ানকে ফোন করলাম। তারপর পুলিশে ফোন করি।

তারপর ডাক্তার ব্রমউইচের নির্দেশে মৃতদেহ পরীক্ষা করে এবং এক সময় ওরা লাশ নিয়ে চলে গেল।

পুলিশ চলে যেতে জুলিয়ান ন্যাশকে বলল, তুমি এখানেই থাকো, কোথাও চলে গেলে পুলিশ আরো বেশী সন্দেহ করবে।

 

ন্যাশ ডেসটারের অনুরোধ -হাউস অব ডেথ ( আগাথা ক্রিস্টির অন্যান্য উপন্যাস ) [ অনুবাদ সাহিত্য ]
আগাথা ক্রিস্টি

–ঠিক বলেছো। ঝামেলা মিটলে আমি রোমে চলে যাবো। তুমি আমার সঙ্গে যাবে তো। ন্যাশ জুলিয়ানকে আদর করে বলে। জুলিয়ান এতে উত্তেজিত হয়ে ওকে বেডরুমের দিকে টানতে থাকে। জুলিয়ানকে সে অখুশী করতে পারে না। জুলিয়ান ঘুমিয়ে পড়ে।

এরপর ন্যাশ বৈঠকখানায় আসে। সে থমকে দাঁড়ায়। দেখে একটা ঢ্যাঙা লোক ওখানে বসে আছে। মুখে সিগারেট, হাতে মদের গ্লাস। কে লোকটা? ন্যাশ লোকটার দিকে তাকিয়ে বলে, আপনার নাম জানতে পারি? কোত্থেকে আসছেন?

–নিশ্চয়ই। আমি স্টিভ হারমাস। বীমা কোম্পানী থেকে এসেছি। ইনভেস্টিগেশনের ব্যাপার।

ইতিমধ্যে ম্যাডক্স এসে হাজির হলো।

ন্যাশকে দেখে ম্যাডক্স বলল, তুমি কোথাও বেড়িও না, বাড়িতেই থাকো। পরে তোমাকে দরকার হতে পারে।

ন্যাশ মাথা নেড়ে চলে গেল।

ম্যাডক্স এবার স্টিভকে বলে, বলো তোমার কি জিজ্ঞাস্য?

স্টিভ বলে, আমার প্রধান প্রশ্ন হলো, এটা খুনের না আত্মহত্যার ঘটনা? আত্মহত্যার ব্যাপারে বীমা কোম্পানীকে কোন টাকা দিতে হবে না। তবে খুনের কেসে টাকা দিতে হবে।

ম্যাডক্স বলে, দাবী ন্যায্য হলে, টাকা মিটিয়ে দিতে হবে, তাতে কোম্পানীরই সুনাম বাড়বে। তবে খুনের কেসে খুনীকে খুঁজে বার করতে হবে।

স্টিভ জানালো, এ বাড়ির সব জানালাগুলো বন্ধ ছিল, কেবল ছাতা-বর্ষাতি রাখার ঘরের একখানা জানালা ছাড়া। তবে সারারাত সে ঐ জানলার কাছে ঠায় দাঁড়িয়ে থাকায়, সে নিশ্চিত যে ঐ জানালা দিয়ে কেউ ঢোকেনি। তবে ব্যাপারটাকে যদি কেউ আত্মহত্যার ঘটনা বলতে চায়, তবে সে মানতে নারাজ, কারণ মাথায় গুলি করলে সারা ঘর রক্তে ভেসে যেত। এক্ষেত্রে রক্ত পড়েছে সামান্যই।

ম্যাডক্স মাথা নাড়ে। বলে, আমি তোমার কথা মানতে নারাজ, কারণ আমার প্রথম থেকে মনে হচ্ছে টাকার লোভে এটা একটা জালিয়াতির চেষ্টা। তোমার কিছু বলার আছে?

–আঙুলের ছাপের প্রশ্ন। জানালা দিয়ে যদি ডেসটার ঢুকতো তাহলে তার আঙুলের ছাপ থাকতো। আত্মহত্যার চিঠি, টাইপরাইটার, মদের গ্লাসে, বোতেলে, পিলে কেহও আঙুলের ছাপ পাওয়া যায়নি। ডেসটার যদি দস্তানা পরা অবস্থায় এটা করে থাকে, তাহলে দস্তানা গেল কোথায়?

—হ্যাঁ, এটা চিন্তার কথা।

তাছাড়া ডেসটার বউয়ের সঙ্গে যে পোশাকে বেরিয়েছিল, মৃত ডেসটারের পরণে কিন্তু সে পোশাক নেই।

স্টিভ বলে, এ ব্যাপারে বলবো, বনবিভাগের কুঁড়েতে যদি ডেসটার হেলেনকে খুন করার আগে পোশাক বদল করে, তবে সেই পোশাকগুলোই বা গেল কোথায়? পুলিশ বনদপ্তরের আশেপাশে এ জামাকাপড় খুঁজছে। স্টিভ একটু হেসে বলে, এটা মিসেস ডেসটারের কোন গুপ্ত প্রেমিকার কাজ নয়তো?

স্টিভ বলে, খুনের ঘটনাকে আত্মহত্যা বলে সাজাতে পারলে কোম্পানীকে সাড়ে সাত লক্ষ ডলারের দাবী মেটাতে হবে না ঠিকই কিন্তু প্রিমিয়াম যা দেওয়া আছে, তাতে এক লাখ চার হাজার জলার ফেরৎ দিতেই হবে।

ম্যাডক্স বলে, এখন বীমার টাকাটাই আসল লক্ষ্য নাও হতে পারে। ঐ এক লাখ চার হাজার ডলারই লক্ষ্য। এখন দুটো জিনিষ জানা খুব প্রয়োজন, এক মিসেস ডেসটারের কোন গুপ্ত প্রেমিক ছিল কিনা। দুই ডেসটারের ওয়ারিশান কে?

এবার ম্যাডক্স ন্যাশকে ডেকে পাঠায়।

–আচ্ছা, মিঃ ন্যাশ, মিসেস ডেসটারের সঙ্গে পুরুষ বন্ধুকে ইদানিং ঘোরাফেরা করতে দেখছো?

ন্যাশের গলা শুকিয়ে আসে, সে বলে, হ্যাঁ, সপ্তাহখানেক আগে ব্রাউন ডার্বি–নামের রেস্তোরাঁ থেকে এক ভদ্রলোকের সঙ্গে মিসেস ডেসটারকে বেরুতে দেখেছি। বয়স বছর পঁয়ত্রিশ হবে। লম্বা, ফর্সা দেখতে বেশ সুন্দর।

–তুমি তার নাম জানো?

–না স্যার।

ম্যাডক্স স্টিভের দিকে তাকিয়ে এ ব্যাপারে খোঁজ নিতে বলে। তারপর সে চলে যায়।

ওরা চলে যেতেই ন্যাশ রক্ত মোছা ন্যাকড়া, রক্ত মাখা জামাকাপড় ইত্যাদি স্যুটকেসে ভরে পিছনের দরজা দিয়ে বেরিয়ে ছোট একটা গলি দিয়ে পুলিশের নজর এড়িয়ে একটা চলন্ত বাসে বিপজ্জনকভাবে উঠে ফায়ারস্টোনের মোড়ে নামে।

তারপর ভিড়ের মধ্যে নিজেকে মিশিয়ে দেয়। সেফ ডিপোজিট লকারের উল্টো দিকে এসে দেখে একটা কালো গাড়ি ও ভেতরে জনাকয়েক শক্তসমর্থ লোক বসে আছে। এরা নিশ্চয়ই পুলিশের লোক, ন্যাশ ভাবে।

এরপর সে ব্যাঙ্কে যায়, সেখানেও পুলিশের গাড়ি আর পুলিশের লোকজন। ন্যাশ বিভ্রান্ত হয়ে পড়ে।

ন্যাশ বোঝে পুলিশ চারদিকে জাল বিস্তার করে ফেলেছে। না পালালে উপায় নেই। কিন্তু তার হাতে আছে মাত্র পাঁচ ডলার। এ নিয়ে সে কতদূর যাবে?

সামনে একটা রেস্তোরাঁ দেখে ঢুকে সে সলিকে ফোন করে।

ও প্রান্ত থেকে গলার আওয়াজ ভেসে এল, সলি এখন অফিসে নেই।

-কোথায় গেছে?

–ওকে পুলিশে ধরে নিয়ে গেছে। কিছু বলার থাকলে আমাকে বলতে পারেন।

-ন্যাশ কিছু না বলে রিসিভার নামিয়ে রাখে। সে ভাবে, সলি নিজেকে বাঁচাবার জন্যে নিশ্চয়ই পুলিশকে সব বলে দেবে। তা থেকে পুলিশ ধরে নেবে যে, সে হেলেনকে ব্ল্যাকমেইল করছিল।

কফি খাওয়া ন্যাশের মাথায় উঠেছে। সে রেস্তোরাঁ থেকে বেরিয়ে তার স্যুটকেসটা পাশের মাল রাখার দপ্তরে জমা রাখে। এখানে নিজের আসল নাম সে গোপন করে।

ন্যাশ এখান থেকে বেরিয়ে সানফ্রান্সিসকো যাবার জন্য বাসস্ট্যাণ্ডে গেল। টিকিট কাটার সময় এমন একটা ঘটনা ঘটলো, যার জন্যে সে সত্যিই প্রস্তুত ছিল না। ফলে ন্যাশ রীতিমত হকচকিয়ে গেল।

হঠাৎ যেন মাটি খুঁড়ে বিশাল চেহারার একজন তার সামনে দাঁড়ায়, চলুন মিঃ ন্যাশ। আমরা আপনাকেই খুঁজছি। বলে ন্যাশকে সে থানায় নিয়ে এল।

ঘণ্টা চারেক ন্যাশ একটা নোংরা ঘরে থাকার পর ব্রমউইচ তাকে ডেকে পাঠায়।

ন্যাশ সেখানে গিয়ে দেখে ম্যাডক্সও সে ঘরে হাজির।

ম্যাডক্সই বলে ওঠে, মতলবটা ভালো কেঁদেছিলে ন্যাশ। কিন্তু কাজটা একেবারে কাঁচা করে ফেলেছ। কোথাও আঙুলের ছাপ বা কোন প্রমাণ নেই। সবই পরিষ্কার বুঝিয়ে দিচ্ছে যে এটা একটা আত্মহত্যার ঘটনা সাজানো হয়েছে।

ওদিকে মাল-গুদাম থেকে পুলিশ স্যুটকেস পেয়েছে। তার মধ্যে ওভারকোট, টুপি ও জুতো পাওয়া গেছে।

ঐসব দেখিয়ে ম্যাডক্স ন্যাশকে বলে, এখন আর কোন কৈফিয়েত দিয়ে লাভ নেই আমার কাছে। যা বলার তা জুরীদের বলতে পারো।

ন্যাশ এর কোন উত্তর খুঁজে পায় না। সে দরদর করে ঘামতে থাকল।

–আমার চেনাজানা ভালো উকিল আছে, পাঠিয়ে দেবো। তবে সেও বোধহয় তোমাকে বাঁচাতে পারবে না। যাক, চলি। কথা শেষ করে ম্যাডক্স চেয়ার ছেড়ে উঠে চলে যায়।

ব্রমউইচ এবার ন্যাশকে জিজ্ঞাসাবাদ করবে। তবে ন্যাশ উকিল না আসা পর্যন্ত মুখ খুলবে না। সে এও জানে, তাতে কোন লাভ হবে না। অনিচ্ছাকৃত হলেও হেলেনকে সে খুনই করেছে। ঘূষিগুলো বেশী জোরে হয়ে গেছে।

ন্যাশ ভাবে এখন আর এসব ভেবে লাভ নেই। চোখের সামনে সে ফাঁসির দড়ি স্পষ্ট দেখতে পাচ্ছে।

ন্যাশের হঠাৎ জুলিয়ানের কথা মনে পড়ে। তার জন্যে ন্যাশের কষ্ট হতে থাকে। তার মুখ দিয়ে একটা চাপা নিঃশ্বাস বেরিয়ে আসে, আর ন্যাশ ভাবে, কোন শুভক্ষণে তার সঙ্গে ডেসটারের পরিচয় ঘটেছিল। নিশ্চিত মৃত্যুর হাত থেকে বাঁচিয়ে ঘটনানুক্রমে আজ তার এই অবস্থা। সবই অদৃষ্ট।

ন্যাশ ডেসটারের অনুরোধ -হাউস অব ডেথ ( আগাথা ক্রিস্টির অন্যান্য উপন্যাস ) [ অনুবাদ সাহিত্য ]
আগাথা ক্রিস্টি

আমাদের আরও পোষ্ট দেখুনঃ

cropped Bangla Gurukul Logo ন্যাশ ডেসটারের অনুরোধ -হাউস অব ডেথ ( আগাথা ক্রিস্টির অন্যান্য উপন্যাস ) [ অনুবাদ সাহিত্য ]

মন্তব্য করুন